অর্থনীতিখেলার মাঠেজাতীয়ধর্মকর্মরাজনীতিরুপসী বাংলালাইফস্টাইলশিক্ষাঙ্গনসীমানা পেরিয়েস্বাস্থ্যপাতা

ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের আঘাতে লন্ডভন্ড বরগুনার জনপদ

নুরুল আমিন মল্লিক | বরগুনা |বাংলাদেশের অন্যতম উপকূলীয় অঞ্চল বরগুনা জেলা, এ জেলার চারদিকে রয়েছে নদী ও সাগর, যার ফলে দমকা হাওয়া ও বৃষ্টি সহ বজ্রপাত হলেই আতঙ্কিত হয়ে পড়েন এখানকার বাসিন্দারা।

২০০৭ সালের ১৫ ই নভেম্বর ঘুর্নিঝড় সিডরের আঘাতের পরে এখানকার জনপদ স্বাভাবিক না হতেই ঘূর্ণিঝড় আইলা, নার্গিস ও আম্ফান এসে আবারও মানুষের মধ্যে আতঙ্কিত করে। সাম্প্রতিক গত ২৬ মে মহা প্রলয় কারী ঘুর্নিঝড় ইয়াসের তান্ডবে আবারও বরগুনা জেলার প্রতিটি জনপদকে লন্ড ভন্ড করে দেয়,এতে বরগুনা সদর উপজেলা সহ পাথর ঘাটা উপজেলার বিষখালীর তীরে অবস্থিত ঐতিহ্যবাহী কাকচিড়া বাজারের লঞ্চ ঘাটের বেড়িবাধ উপড়ে পানি ভেতরে প্রবেশ করলে মুহুর্তের মধ্যে বাজারে কাচা বাজার সহ বেশ কয়েকটি মুদি দোকান পানিতে তলিয়ে গেলে চরম দুর্ভোগে পড়েন স্থানীয় বাসিন্দা সহ ব্যবসায়ী গন।

এভাবে বাইনচটকী ফেরিঘাট সহ বরগুনা শহরের প্রতিটি অলিগলিতে পানি প্রবেশ করে ব্যপক ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া গেছে। বেড়িবাঁধের উপর দিয়ে পানি প্রবেশ করার কারনে ক্ষতিগ্রস্ত জনসাধারণ এলাকার জনপ্রতিনিধিদের দোষারোপ করে বলেন তাদের অব্যবস্থাপনার কারণে আমাদের আজ এই দুর্দশা।তাদের কাছে বহুবার সংস্কারের দাবি করা সত্বেও তারা কোন সংস্কার বা মেরামত করেননি।ভুক্তভোগীরা বেড়িবাঁধগুলো যাহা রয়েছে তার থেকে ৪,৫ ফুট উঁচু করা সহ ব্লকের কাজের জোড় দাবি জানান।

অন্যদিকে বরগুনা ২ আসনের সংসদ সদস্য শওকত হাসানুর রহমান রিমনকে ক্ষতি গ্রস্ত জনসাধারণের দ্বারে দ্বারে গিয়ে খোঁজ খবর নেওয়া সহ উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি দিতে দেখা গেছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে আজও ৩ থেকে ৪ফুট জলোচ্ছ্বাস সহ দমকা হাওয়া বইতে দেখা যাচ্ছে যার ফলে এখনও জনমনে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

0Shares

Comment here