জাতীয়লাইফস্টাইলশিক্ষাঙ্গনসীমানা পেরিয়ে

আরমানিটোলায় রাসায়নিক গুদামে আগুন, নারীসহ নিহত ৪

স্টাফ রিপোর্টার || নিমতলী ট্র্যাজেডির পর আর্মানিটোলা। মাঝখানে কেটে গেছে প্রায় ১০ বছর। এরপরেও রাসায়নিকের গুদাম সরিয়ে নেয়া হয়নি, পুরান ঢাকা থেকে। আবারো যার মাশুল দিতে হলো, জীবন দিয়ে। আগুনে পুড়ে প্রাণ গেলো, আরও চার জনের।

ইসরাত জাহান মুনা। সদ্য বিয়ে করেছিলেন। হাজী মুসা ম্যানসনের আগুনে পুড়ে গেছে তার শ্বাসতন্ত্র। ভর্তি আইসিইউতে। তার স্বামী আশ্রাফুজ্জামনও আগুনে দগ্ধ। মুনার ছোট বোন, ইডেন কলেজের ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থী নুসরাত জাহান সুমাইয়া, এই আগুনে প্রাণ হারিয়েছেন।

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, চারজনকে আশংকাজনক অবস্থায় আইসিউতে রাখা হয়েছে। ১৬ জনকে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। আর একজনকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে চিকিৎসা শেষে।

ভোররাতে পুরান ঢাকার আরমানিটোলার হাজী মুসা ম্যানসনের নিচতলা হঠাৎ আগুনের সূত্রপাত। কিছু বুঝে ওঠার আগেই, ছড়িয়ে পড়ে আশপাশে।

প্রায় তিন ঘণ্টা ঘরে দাউদাউ করে আগুন জ্বলেছে ভবনটিতে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে তৎপরতায় নামে ফায়ার সার্ভিস। আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে সকাল ৬টার দিকে।

ছয়তলা ভনটির নিচতলায় দোকান ও রাসায়নিকের গুদাম ছিলো। বাকি তলাগুলোতে বিভিন্ন পরিবারের বসবাস।

পুরান ঢাকা থেকে রাসায়নিক কারখানা সরিয়ে নিতে বিভিন্ন সময় উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। নীমতলিতে আগুনে হতাহতের পর উদ্যোগ নেয়া হয়েছিল। ১০ বছরের বেশি সময় হলেও সরকারের কোন উদ্যোগ আলোর মুখ দেখেনি।

চুরিহাট্টায় দুই বছর আগে আগুন লাগার পর সিটি করপোরেশন রাসায়নিক কারখানা সরিয়ে নিতে উদ্যোগ নিয়েছিলো। কয়েকদিন অভিযানও চলেছে। তবে পুরান ঢাকার আবাসিক এলাকা থেকে সরানো যায়নি এসব কারখানা, গুদাম ও দোকান।

কি কারণে এ ঘটনা, তা তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি। তদন্ত কমিটি গঠন করে, বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

0Shares

Comment here