জাতীয়রকমারিরাজনীতি

কাদের মির্জার সমর্থকদের সংগে প্রতিপক্ষের ব্যাপক সংঘর্ষ, ১৫ জন আহত

দিগন্তর ডেস্ক :নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জের বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমানের (বাদল) অনুসারীদের মধ্যে আবার পাল্টাপাল্টি হামলা, গুলি ও সংঘর্ষ হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৫ এপ্রিল) বিকালে কোম্পানীগঞ্জ থানা-সংলগ্ন ব্রিজ এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এতে উভয় পক্ষের অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জার এক অনুসারী শাহাদাত সিপাত ফেসবুক লাইভে উপজেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাদের নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য ও গলমন্দ করেন। এর জের ধরে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। তবে সংঘর্ষের প্রকৃত কারণ জানা সম্ভব হয়নি। কাদের মির্জা কিংবা শাহদাত সিপাতের বক্তব্যও পাওয়া যায়নি।

এর আগে গত ৯ মার্চ বসুরহাটে এই দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে আলাউদ্দিন নামে শ্রমিক লীগের এক নেতা মারা যান। ওই সংঘর্ষে আরো কমপক্ষে ৩০ জন আহত হন।

ওই ঘটনার পর নতুন করে দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে তিনটার দিকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমানের অনুসারীরা বসুরহাটে আসেন। তাঁরা কাদের মির্জার অনুসারী শাহদাত সিপাতের ফেসবুক লাইভে দেওয়া বক্তব্যের প্রতিবাদে থানার সামনে দিয়ে কাদের মির্জার বিরুদ্ধে স্লোগান দিয়ে জিরো পয়েন্টের দিকে যাওয়ার চেষ্টা করেন। এ সময় পুলিশ তাঁদের ধাওয়া করে।

এরপর মিজানুর রহমানের অনুসারীরা রূপালী চত্বরের দিকে যাওয়ার সময় জিরো পয়েন্ট থেকে কাদের মির্জার ৬০-৭০ জন অনুসারী হামলা চালান। এ সময় কয়েকটি ককটেলের শব্দও শোনা যায়। একপর্যায়ে হামলাকারীরা ওবায়দুল কাদেরের ভাগনে ফখরুল ইসলামের (রাহাতের) বাসায় ককটেল ছুড়ে মারেন। এ সময় দুই পক্ষের মধ্যে কিছুক্ষণ ইটপাটকেল নিক্ষেপ চলে। এতে উভয় পক্ষের প্রায় ১৫ জন আহত হন।

তাঁদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর জাহেদুল হক সংবাদমাধ্যমকে বলেন, সকালে পৌরসভা ভবন থেকে কাদের মির্জার এক অনুসারী ফেসবুকে লাইভে বক্তব্য দেন। এ নিয়ে অপর পক্ষ ক্ষুব্ধ হয়। তারা প্রতিবাদ জানালে উত্তেজনা দেখা দেয়, যার একপর্যায়ে মেয়রের অনুসারী ও উপজেলা আওয়ামী লীগের মিজানুর রহমানের অনুসারীদের মধ্যে পাল্টাপাল্টি ধাওয়া ও সংঘর্ষ হয়। তৎক্ষণাৎ পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।

0Shares

Comment here