রুপসী বাংলালাইফস্টাইলশিক্ষাঙ্গন

খুলনা ফুলতলা উপজেলার বেজেরডাঙ্গায় অবাধে ক্রয় বিক্রয় চলছে জ্বালানি তেল

এস এম মমিনুর রহমান ফুলতলা থেকে : সরকারি নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে খুলনা জেলার ফুলতলা থানার বেজেরডাঙ্গায় যশোর-খুলনা মহাসড়কের পাশ দিয়ে অবাধে বিক্রি হচ্ছে পেট্রোল।

সরেজমিনে দেখাযায় নাসির উদ্দিন (৪৮) নামে জনৈক এক ব্যক্তি উক্ত এলাকায় অবৈধভাবে গড়ে তুলেছে সর্বপ্রকার জ্বালানি তেল ক্রয় বিক্রয়ের প্রতিষ্ঠান।

জ্বালনি তেল ক্রয় বিক্রয়ের জন্য যে সকল লাইসেন্স আবশ্যকীয়, তিনি সে সকল লাইসেন্স ছাড়াই দীর্ঘদিন যাবত অবৈধভাবে তেল ক্রয় এবং বিক্রয় করে চলছে বলে জানাগেছে।

তথ্যসূত্রে আরো জানাযায় উক্ত প্রতিষ্ঠান/ দোকানে নেই কোন অগ্নিনির্বাপক ব্যবস্থা। জ্বালনি তেল ঢেকে রাখা হয় পলিথিন দিয়ে। ফলে যে কোন সময়ে ঘটতে পারে মারাত্মক দূর্ঘটনা।

রোববার আনুমানিক বেলা ১১টার দিকে যশোর উপশহর ফিলিং স্টেশনের নামে একটি তেলের গাড়ি নাসিরউদ্দিনের দোকানের সামনে এসে দাড়ায়। আশেপাশে কোন লোকজন না থাকায় ড্রাইভার রিয়াজ ও নাসিরউদ্দিন গাড়ি থেকে চুরি করে তেল নামাতে থাকে। (যার গাড়ির নং- যশোর-ঢ ৪১-০০১৩) এই দৃশ্য সাংবাদিকরা ভিডিও ধারন করা হলে নাসিরউদ্দিন বিভিন্ন মহলে দোড়ঝাপ ও তদবীর শুরু করে দেয়।

ড্রাইভারকে অবৈধভাবে গাড়ির তেল চুরির বিষয়ে জিজ্ঞাসা করা হলে সে তার ভুল স্বীকার করে বলেন টাকার জন্য এমন কাজ করেছি। এ সময় ড্রাইভার রিয়াজের নিকট থেকে আরো কিছু তথ্য সংগ্রহের এক পর্যায়ে নাসিরউদ্দিন তথ্য সংগ্রহে বাধা প্রদান করেন। এবং বিভিন্ন লোকদের ফোন করে উক্ত স্থানে আসতে বলেন।  এ সময় সে তাৎক্ষনিক স্থানীয় এক ব্যক্তিকে ডেকে এনে তথ্য সংগ্রহে সাংবাদিক দের কাজে বাধাদেয় এবং উক্ত স্থান ত্যাগ না করলে পুলিশে ধরিয়ে দেওয়ার হুমকি দেয়।

চোরাকারবারী অসাধু এ তেল ব্যবসায়ী নাসিরউদ্দিনের খুুঁটির জোর কোথায় জানতে চায় এলাকা বাসী।

এদিকে ফুলতলা থানা এলাকার বিভিন্ন স্থান ঘুরে সরেজমিন দেখা যায়, জেলার সর্বত্র ছড়িয়ে ছিটিয়ে বিক্রি হচ্ছে খুচরা পেট্রোল। হাফ লিটার, ১ লিটার, ২লিটার পানির পটে করে রাস্তার পাশে অবাধে বিক্রি করা হয় এ সব পেট্রোল।

এসব বোতল মাপেও কম থাকে বলে জানাযায়।

এ বিষয়ে একাধিক  দোকানদার দের সাথে কথাবলে জানা যায় ১০ লিটার পেট্রোল, পাম্প থেকে কিনলে বোতলে ভরার পর প্রায় ১ লিটার পেট্রোল বেশি থাকে, এভাবে সবার চোখের সামনে প্রতিনিয়ত মাপে কম দিয়েও ফাঁকি দেওয়া হচ্ছে।

বোতল বা জারে করে পেট্রোল বিক্রি করার বিধি নিষেধ থাকলেও‘ মোড়ে মোড়ে সবার হাতের নাগালে এখন পেট্রোল খুব সহজে পাওয়া যাওয়ায় পেট্রোল দিয়ে অহরহ তৈরি হচ্ছে মানুষ দগ্ধ কারী পেট্রোল বোমা। যা রাষ্ট্রের জন্য অত্যান্ত ক্ষতিকর।

এসবের কারনে টিভি/পত্রিকা খুললেই দেখা যায় পেট্রোল বোমার বিস্ফোড়নে মানুষ পুড়ে দগ্ধ হওয়ার খবর। অচিরেই বেআইনি এ বিস্ফোরক জালানী অবাধে বেচা বিক্রি বন্ধ করা হোক বলে মতামত দিয়েছেন পরিবেশ বিদরা।

0Shares

Comment here