জাতীয়রুপসী বাংলালাইফস্টাইলশিক্ষাঙ্গনসীমানা পেরিয়ে

নেত্রকোণায় বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে অসংখ্য বার ধর্ষণের অভিযোগে মামলা

মেহেদী হাসান নেত্রকোনা জেলা প্রতিনিধি : নেত্রকোণায় রুমা নামের একটি মেয়েকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে শামিম নামের জনৈক লম্পটের বিরুদ্ধে অসংখ্য বার ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

নেত্রকোণা সদর উপজেলার ৪নং সিংহের বাংলা ইউনিয়নের শিমুলজানী গ্রামের আঃ সাত্তার মিয়ার ছেলে মোঃ শামীম (২২) মিয়ার বিরুদ্ধে এই অভিযোগ পাওয়া যায়।

এলাকাবাসী সূত্রে জানাগেছে নেত্রকোণা সদর উপজেলার ৯নং চল্লিশা ইউনিয়নের লাইট গ্রামের সুরুজ আলীর মেয়ে মোছাঃ রুমা আক্তার ঢাকা মাওনা গাজীপুর ট্রেক্সটাইল মিলে চাকরি করতো,  শামীম মিয়াও একই টেক্সটাইল মিলে চাকরি করার সুুুবাদে দুজনের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক হয়। প্রায় ১ বছর প্রেমের সম্পর্ক হওয়ার পর শামীম রুমাকে বিয়ের প্রভোলোন দিয়ে গত বছরের ২০ নভেম্বর তার গ্রামের বাড়ীতে (ঘটনাস্থল) নিয়ে আসে এবং ২ মাস ধরে সেখানে শামীম রুমাকে অসংখ্যবার ধর্ষণ করে।

রুমা আরো জানায় শুধু শামিমের বাড়িতেই নয় আমরা ঢাকাতে বাসা ভাড়া করেও স্বামী স্ত্রীর মতো থাকতাম। ও আমাকে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন জায়গায় নিয়ে গিয়েও ধর্ষণ করেছে। রুমা জানান এরমধ্যে আমি অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়লে এ খবর শামিম জানলে সে আমাকে ওষুধ খাওয়ায়ে এভাসন করতে বলে।

পরে আমি আমার পরিবারকে বিষয়টি খুলে বললে তারা শামিমের সাথে কথা বলে সমাধান করার কথা বললে শামিম তাতে ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। এবং তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ অস্বীকার করে।

এরপর উপায়ান্তর না দেখে গত ২৫ জানুয়ারি ২০২১ বেলা ১১ টায় নেত্রকোণা মডেল থানায় শামিমের বিরুদ্ধে ধর্ষন মামলা করতে গেলে থানা কর্তৃপক্ষ মামলাটি নিতে আপত্তি জানায়, এরপর নেত্রকোনা বিজ্ঞ আদালতে অভিযোগটি দাখিল করলে কোর্ট মামলাটি আমলে নিয়ে নেত্রকোনা থানাকে এফআইআর এর নির্দেশ দিলেও এখন পর্যন্ত অজ্ঞাত কারনে আসামী শামীমকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়নি বলে জানিয়েছেন রুমা ও তার পরিবার।

স্থানীয় ব্যাক্তিদের দাবী আসামী শামীমকে আইনের আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হউক। যাতে শামীম মিথ্যে প্রেমের প্রলোভনে আর কোন রুমার জীবন নষ্ট করতে না পারে।

0Shares

Comment here