খেলার মাঠেজাতীয়প্রযুক্তিশিক্ষাঙ্গনস্বাস্থ্যপাতা

শ্রীমঙ্গলের কুখ্যাত পতিতা ব্যাবসায়ী ও মানব পাচার কারি আসমা আটক

সৈয়দ সিরাজুল ইসলাম হাসান : মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গলের কুখ্যাত পতিতা ব্যাবসায়ী ও মানব পাচার মামলার আসামী আছমা (৪৫) কে আটক করেছে শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশ।

বুধবার ১৭ ফেব্রুয়ারী (বুধবার)রাত পৌনে দশটার দিকে গোপন সংবাদ পেয়ে শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশের ওসি তদন্ত হুমায়ুন কবিরের নেতৃত্বে একদল পুলিশ অভিযান চালিয়ে শহরের গুহ রোড এলাকা থেকে আসমাকে আটক করা হয়।

গত ১৬ই ফেব্রুয়ারী রাতে পতিতাবৃত্তির অভিযোগে পুলিশ শহরের হাউজিং এষ্টেট এলাকায় অবস্থিত আসমার বাসায় অভিযান চালানো হয়। উক্ত অভিযানকালে সেখান থেকে অবৈধ পতিতাবৃত্তির অভিযোগে ২ নারী ও ২ পুরুষ খদ্দেরকে হাতেনাতে আটক করে থানায় নিয়ে আসে শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশ। উক্ত অভিযানের আগেই বাসা থেকে কৌশলে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয় আছমা। এ আটকের ঘটনায় থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়। এ মামলার সূত্র ধরে বুধবার রাতে পতিতা ব্যবসায়ী আছমাকে পুলিশ আটক করে।

শহরের বিরাহীমপুর এলাকার বাসিন্দারা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আছমা দীর্ঘদিন ধরে শ্রীমঙ্গলে পতিতাবৃত্তি করে আসছে। দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে নারীদের নিয়ে এসে তার বাসায় জোর করে পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য করানো হয়। এর আগেও কয়েকবার পুলিশের হাতে আটক করা হলেও সে ছাড়া পেয়ে পুরোনো কাজে ফিরে আসে পতিতা ব্যবসা চালিয়ে যায়।

আছমা তার বসত বাড়ি যৌনপল্লী বানিয়ে ফেলেছে, পাশাপাশি বিভিন্ন আবাসিক হোটেল রিসোর্টে নারী সরবরাহ কাজেও লিপ্ত রয়েছে সে। এলাকায় অনেকে অভিযোগ করে বলেছেন, দিনের পর দিন আছমার এসব অসামাজিক কাজের পেছনে এক শ্রেনীর প্রভাবশালী মহলের হাত রয়েছে। যারা নিয়মিত মাসোহারা নিয়ে আছমাকে এসব অনৈতিক কাজের প্রশয় দিয়ে থাকেন।

শ্রীমঙ্গল থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আব্দুছ ছালেক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে দিগন্তর প্রতিনিধিকে বলেন,আছমা দীর্ঘদিন থেকে পতিতাবৃত্তির সাথে জড়িত। শ্রীমঙ্গল থানায় তার বিরুদ্ধে মানব পাচারের মামলাও রয়েছে। আসমার ছেলে কয়েক মাস পূর্বে একটি মার্ডার মামলায় আটক হয়ে জেলে আছে। তিনি আরো বলেন আছমা নিজে ও অন্য মেয়েদের দিয়ে এসব অনৈতিক কাজ করে আসছিলো। শ্রীমঙ্গল থানায় দায়ের করা মানব পাচার মামলায় আসমাকে আটক করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার তাঁকে আদালতে প্রেরণ করা হবে বলে তিনি জানান।

 

0Shares

Comment here