অর্থনীতিজাতীয়শিক্ষাঙ্গনসীমানা পেরিয়ে

রাশিয়ার স্পুতনিক ভি বদলে দিতে পারে ভূ-রাজনৈতিক সমীকরণ

আজিজুর রহমান আজিজ
ইউ এ ই থেকে || রাশিয়ার তৈরি করোনা ভ্যাকসিন, যেটি সম্ভবত সোভিয়েত যুগের পর দেশটির বৃহত্তম বৈজ্ঞানিক অগ্রগতি, তা পুতিনের প্রতি পশ্চিমা দেশগুলোর বৈরিতার পরিবর্তন না ঘটালেও, অন্যান্য অঞ্চলে ব্যাপক প্রভাব বিস্তার করতে পারে এবং রাশিয়ার ভ্যাকসিন কূটনীতি বদলে দিতে পারে ভূ-রাজনৈতিক সমীকরণ। এক বছরেরও বেশি সময়ের মধ্যে ২.৩ মিলিয়ন মানুষের প্রাণহানি করা এবং সমাজ ও অর্থনীতিকে বিধ্বস্ত করে দেয়া করোনা মহামারীকে পরাজিত করার বিশ্বযুদ্ধে ভ্যাকসিন উপলব্ধ করার জন্য দেশগুলোর মরিয়া প্রচেষ্টা পৃথিবীর ভূ-রাজনৈতিক তাৎপর্যকে বাড়িয়ে দিয়েছে। এটিই রাশিয়াকে মুষ্টিমেয় দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম করে তুলেছে, যাদের বিজ্ঞানীরা করোনার বিরুদ্ধে কার্যকর প্রতিরোধ ব্যবস্থা তৈরি করেছেন।

মহাকাশে আমেরিকার বিরুদ্ধে সোভিয়েত ইউনিয়নকে এনে দেয়া ১৯৫৭ সালে যাত্রা শুরু করা বিশ্বের প্রথম উপগ্রহ স্পুতনিকের নামানুসারে রাশিয়ার করোনাভ্যাকসিন নামকরণের সিদ্ধান্ত দেশটির সাফল্যের মাত্রার নির্দেশ করে। দ্য ল্যানসেটে মেডিকেল জার্নালের পর্যালোচিত ২০ হাজার অংশগ্রহণকারীর সর্বশেষ পরীক্ষায় দেখা গেছে যে, স্পুতনিকের সফলতার হার ৯১.৬ শতাংশ। এ সপ্তাহে দ্য ল্যানসেট ফলাফল প্রকাশের পর বিশ্বের দেশগুলো স্পুতনিক ভি পেতে সার বেঁধেছে। ফাইজার বায়োএনটেক ভ্যাকসিনের বিপরীতে স্পুতনিক ভি ফ্রিজারের চেয়ে ফ্রিজে সংরক্ষণ করা যেতে পারে, যার ফলে এটি দরিদ্র ও বিষুবীয় দেশগুলোতে পরিবহন ও বিতরণ করা সহজ। দু’টি টিকা দিতে প্রায় ২০ ডলার খরচ হয়, যা বেশিরভাগ পশ্চিমা বিকল্পগুলোর চেয়ে সস্তাও।

স্পুতনিক ভি ইতোমধ্যেই পুতিনের রাজনৈতিক অর্জনে পরিণত হয়েছে। রাশিয়া এর মাধ্যমে কোমল শক্তির প্রয়োগ করে বহু বছরের আন্তর্জাতিক সমালোচনা ও দেশ-বিদেশে তার রাজনৈতিক বিরোধীদের প্রশমনে সাফল্য লাভ করতে শুরু করেছেন। ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্য-রাষ্ট্র হাঙ্গেরিসহ কমপক্ষে ২০টি দেশ ব্যবহারের জন্য রাশিয়ার ভ্যাকসিনটি অনুমোদন করেছে। ব্রাজিল এবং ভারতের মতো বড় বাজারগুলোও এটিকে অনুমোদনের পথে রয়েছে।

রাশিয়া তার ১৪ মিলিয়ন জনগণের জন্য বিনামূল্যে টিকা দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে গত বছর থেকে এর উৎপাদন শুরু করে। বর্তমানে ভ্যাকসিনটি ভারত, দক্ষিণ কোরিয়া এবং ব্রাজিলসহ বিভিন্ন দেশে তৈরি করা হচ্ছে। চলতি সপ্তাহে এ উসিলায় রাশিয়া তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগানের ঘনিষ্ঠ মিত্র হিসাবে আত্মপ্রকাশ করেছে। তুরস্ক চীনের সিনোভাক বায়োটেক লিমিটেডের করোনো ভ্যাকসিনের ৫ মিলিয়ন ডোজ এবং ফাইজার বায়োএনটেক’র সাড়ে ৪ মিলিয়ন ডোজ কেনার চুক্তি করার পরেও স্পুতনিক ভি উৎপাদন করার জন্য রাশিয়ার সাথে একটি চুক্তি স্বাক্ষর করেছে।

গেল ২৫ জানুয়ারি মেক্সিকোর প্রেসিডেন্ট অ্যান্দ্রেস ম্যানুয়েল লোপেজ ওব্রাডর করোনা আক্রান্ত হওয়ার ঘোষণা করার পরের দিন ২৪ মিলিয়ন ডোজ স্পুটনিক ভি সরবরাহের প্রতিশ্রুতি দেয়ার জন্য ‘সত্যই স্নেহশীল’ অভিহিত করে পুতিনকে ধন্যবাদ জানান। ৩ দিন পর, বলিভিয়ার প্রেসিডেন্ট লুইস আরসে লা পাজ বিমানবন্দরে ব্যক্তিগতভাবে স্পুতনিক ভি’র একটি ব্যাচ সংগ্রহ করেন। ভ্যাকসিন পেতে হিমশিম খাওয়া আর্জেন্টিনা জানুয়ারির মধ্যে অর্ধেক মিলিয়নেরও বেশি স্পুটনিক ভি ডোজ সংগ্রহণের পর ব্যাপকভাবে টিকাদান কার্যক্রম শুরু করেছে। নিকারাগুয়া, প্যারাগুয়ে এবং ভেনিজুয়েলাও ভ্যাকসিনটি সংগ্রহ করেছে।
গিনি আফ্রিকার প্রথম দেশ যারা গত ডিসেম্বরে স্পুটনিক ভি বিতরণ শুরু করে। জিম্বাবুয়ে, সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিক এবং আইভরি কোস্ট রাশিয়ার অন্যান্য সম্ভাব্য গ্রাহকদের তালিকায় রয়েছে। ইরানের মতো কিছু দেশ যারা এ সপ্তাহে প্রতিশ্রুত ২ মিলিয়ন ডোজ প্রথম ব্যাচ সংগ্রহ করেছে, তাদেরকে রাশিয়া পাশ্চাত্যের সরবরাহকারীদের চেয়ে আরও প্রীতিকর রাজনৈতিক বিকল্পের প্রস্তাব করছে। তবে রাশিয়া সংযুক্ত আরব আমিরাতের মতো দেশগুলোতেও প্রবেশ করেছে, যারা ঐতিহ্যগতভাবে আমেরিকার ঘনিষ্ঠ, কিন্তু স্পুটনিক ভি-কে ব্যবহারের জন্য অনুমোদিত করেছে। গত মঙ্গলবার জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মের্কেল বলেছেন যে, রাশিয়ান ভ্যাকসিনটি ইউরোপীয় মেডিসিন এজেন্সি দ্বারা অনুমোদিত হলে ২৭ সদস্যের ব্লকের লোকদের সুরক্ষার জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে। ফ্রান্সের শিল্পমন্ত্রী বলেছেন, রাশিয়ার ভ্যাকসিন অনুমোদনের বিষয়ে তার আপত্তি নেই। হাঙ্গেরি ইতোমধ্যে ২ মিলিয়ন স্পুতনিক ভি ডোজের জন্য চুক্তি স্বাক্ষর করে এর জরুরি অনুমোদন দিয়েছে এবং গত মঙ্গলবার এর প্রথম ৪০ হাজার শট সরবরাহ করা হয়েছে। সিনোভ্যাক বায়োটেকের থেকে ৫০ শতাংশের চেয়ে কম কার্যকর হলেও এশিয়ায় তার শীর্ষস্থান ধরে রেখেছে। তবে, ফিলিপিন্সসহ এশিয়ার বেশ কয়েকটি দেশ স্পুটনিক ভি-কে বেছে নিয়েছে। (সূত্র : দ্য প্রিন্ট।)

 

0Shares

Comment here