অর্থনীতিখেলার মাঠেজাতীয়ধর্মকর্ম

শ্রীমঙ্গলে পতিতালয়ে পুলিশের অভিযান, পতিতা ব্যবসায় সম্পৃক্ত ২জনকে আটক, ১ জন উদ্ধার

নিজস্ব প্রতিবেদক || সিরাজুল ইসলাম : মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে অবৈধ পতিতালয়ে পুলিশের অভিযান, অভিযানে পতিতা ব্যবসার সাথে সম্পৃক্ত থাকায় ২জনকে আটক করেছে শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশ। এসময় হবিগঞ্জের বাহুবল থেকে নিখোঁজ হওয়া এক তরুণীকে উদ্ধার করা হয়েছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসীসূত্রে জানা যায় শ্রীমঙ্গলে মৌলিবাজার রোডে হাউজিং স্টেট সংলগ্ন উত্তর ভাড়াউড়া এলাকায় অবৈধভাবে নারী পাচার ও পতিতা ব্যবসা খুলে বসছিলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জনৈক আসমা বেগম।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এলাকার অনেকেই জানান বিভিন্ন এলাকা থেকে উঠতি বয়সী নারীদের বিভিন্ন কৌশলে এনে জোরপূর্বক পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য করতো আসমা। সে উক্ত নারীদের বিভিন্ন পুরুষের সাথে দৈহিক মেলামেশার ভিডিও ফুটেজ নিজের সংগ্রহে রেখে উক্ত নারীদেরকে পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য করতো। আসমাকে এ কাজে সহযোগিতা করতো পায়েল ও রহিম নামের দুুুজন।

উল্লেখ্য গত ১৮ ০২ ২০২১ ইং তারিখে বিকাল অনুমান ৩ ঘটিকায় বাহুবল থানার স্নানঘাট ইউপির মোসাঃ আমিনা বেগম নামের একটি মেয়ে হারানো যায় যা বাহুবল থানায় একটি জিডি করা হয় যার নম্বর (জিডি নং১৩১৯)। পরে বিভিন্ন জায়গায় অনুসন্ধানের পর উত্তর ভাড়াউড়া আসমার আস্তানায় মৎস্য ব্যবসায়ী আলী সন্ধান পায়।

আসমার কাছে মেয়েটি আছে এই সংবাদটি মেয়েটির পরিবারকে জানানো হলে মেয়েটির ভাই কাশেম, শ্রীমঙ্গলের মোটর শ্রমিকলীগ ফেডারেশনের সভাপতি ফজলু আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক সালাউদ্দিন আহমেদ, থানা শাখার সহ সাধারণ সম্পাদক মাসুক আহমদ এর শরণাপন্ন হলে তাদের সহযোগিতায় শ্রীমঙ্গল থানা অফিসার ইনচার্জ আব্দুস ছালেককে অবগত করলে সাথে সাথে মেয়েটিকে উদ্ধারের জন্য ২৯ জানুয়ারি শ্রীমঙ্গল থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুস ছালেক এর দিক নির্দেশনায় আসমার আস্তানায় অভিযান চালানো হয়। এসময় এসআই জাকির হোসেন ,এ এসআই নজরুল ইসলামের নেতৃত্বে আফসানা বেগম, মুন্নি বেগম ,ও দালাল ওয়াহিদ মিয়াকে আটক করা হয়।

এ বিষয়ে শ্রীমঙ্গল থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুস সালেক জানান শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে ২জনকে আটক করেছে এবং হবিগঞ্জের বাহুবলে নিখোঁজ তরুণীকে উদ্ধার করা হয়েছে। শ্রীমঙ্গলে পতিতা ব্যবসার সাথে সম্পৃক্ত কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না বলে হুশিয়ারী দেন। এবং এ অভিযান চলমান থাকবে বলেও তিনি জানান।

 

0Shares

Comment here