জাতীয়প্রযুক্তিরকমারিস্বাস্থ্যপাতা

মেয়াদ শেষে দায়িত্ব আঁকড়ে থাকতে পারবেন না, জন প্রতিনিধিদের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন

শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি ||
সৈয়দ আমিনুল ইসলাম আল আমিন : মৌলভীবাজার শ্রীমঙ্গলে শনিবার ( ৯জানুয়ারি ) দুপুর ১২টা থেকে ৩ টা পর্যন্ত, উপজেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে শ্রীমঙ্গল উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে,শ্রীমঙ্গল উপজেলার সামগ্রিক উন্নয়নে সরকারি কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি,রাজনৈতিক ও সুধী সমাজের সাথে মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয়।

মতবিনিময় সভায় সিলেট বিভাগীয় কমিশনার মশিউর রহমান, এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মৌলভীবাজার ৪ আসনের সংসদ সদস্য, সাবেক চীপ হুইপ, বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ এর অনুমিত হিসাব সম্পর্কিত কমিটির বর্তমান সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব উপাধ্যক্ষ ড.আব্দুস শহীদ এমপি। এতে প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন হেলালুদ্দীন আহমেদ, সিনিয়র সচিব,স্থানীয় সরকার বিভাগ,স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রনালয়।

উপজেলা নির্বাহি অফিসার মো:নজরুল ইসলাম এর সঞ্চালনায় প্রধান আলোচকের বক্তব্যে সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দিন আহমেদ বলেছেন শ্রীমঙ্গল পৌরসভা নির্বাচন অনুষ্ঠান নিয়ে সরকার কাজ করে যাচ্ছে । নতুন করে কোন আইনি জটিলতা সৃষ্টি না হলে, খুব শিঘ্রই শ্রীমঙ্গল পৌরসভা নির্বাচন করা সম্ভব। তিনি বলেন, পৌরসভা এলাকা সম্প্রসারণ নিয়ে হাইকোর্টে একের পর এক রিট দায়েরের কারণে মেয়াদ উত্তীর্ণের ৭ বছর পেরিয়ে গেলেও এখানে নির্বাচন করা হয়নি। তিনি বলেন, দেশের যে সব পৌরসভায় বিরোধীদলের মেয়ররা দায়িত্বে রয়েছেন,দেখা গেছে সেসব পৌরসভার মেয়ররা ক্ষমতায় থাকার জন্য জটিলতা সৃষ্টি করছেন। মেয়াদ শেষ হলে আর কোন জনপ্রতিনিধি ক্ষমতা আঁকড়ে থাকতে পারবেন না। এজন্য আইন সংশোধন করা হবে। যাতে করে মেয়াদ শেষে জন প্রতিনিধিরা প্রশাসকের কাছে দায়িত্ব হস্তান্তর করতে পারেন।

তিনি শ্রীমঙ্গল পৌরসভা নিয়ে জেলা প্রশাসকের গাফিলতিকে দায়ী করে বলেন, জেলা প্রশাসকরা মন্ত্রনালয়ে সঠিক রিপোর্ট না পাঠানোর কারনে আমরা মন্ত্রনালয় থেকে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারিনা।এবং পৌরসভার পরিধি সম্প্রসারণ একটি দীর্ঘ প্রক্রিায়া। এর মধ্যে শ্রীমঙ্গল পৌরসভা নিয়ে উচ্চ আদালতের স্থগিতাদেশ থাকায় সম্প্রসারণ ও নির্বাচন দুটোই বিলম্ব হচ্ছে।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে আব্দুস শহীদ (এমপি) শ্রীমঙ্গল পৌরসভার নির্বাচন নিয়ে সম্প্রতি সরকারী দলের মানববন্ধন আন্দোলনে নামার প্রতি ইঙ্গিত করে বলেন, ‘এটা পাটির জন্য সপ্তম আশ্চার্য না বা অষ্টম আশ্চার্য ঘটনা।পৌরসভার সম্প্রসারণ প্রক্রিয়া নিয়ে যা করার আইন কানুন মেনেই সব কিছু করতে হবে। তিনি বলেন, শ্রীমঙ্গলের পর্যটন শিল্প বিকাশে সরকার নানা পদক্ষেপ গ্রহন করছে। শ্রীমঙ্গলের নৈসর্গিক সৌন্দর্য উপভোগ করতে দেশ বিদেশ থেকে প্রতিদিন গড়ে প্রায় ৫ হাজার পর্যটক আসেন। তাদের সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি ও হাম হাম জল প্রপাতসহ বিভিন্ন পর্যটন স্পট আধুনিকায়নের সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হয়েছে।

অনুষ্ঠান শেষে শ্রীমঙ্গল বাসীর পক্ষ থেকে অতিথিদের সম্মননা স্মারক প্রদান করা হয়।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসক মীর নাহিদ আহসান,জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মিছবাহুর রহমান, মৌলভীবাজার পুলিশ সুপার মোঃ জাকারিয়া, শ্রীমঙ্গল উপজেলা চেয়ারম্যান (ভারপ্রাপ্ত) প্রেম সাগর হাজরা, শ্রীমঙ্গল পৌরসভা মেয়র মহসিন মিয়া মধু,জেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক অধ্যক্ষ সৈয়দ মনসুরুল হক।

এছাড়াও আরো উপস্থিত ছিলেন শ্রীমঙ্গল উপজেলা কমিশনার (ভূমি) নেছার উদ্দিন, শ্রীমঙ্গল ও কমলগঞ্জের সহকারী পুলিশ সুপার আশরাফুজ্জামান আশিক, শ্রীমঙ্গল থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুছ ছালেক,উপজেলা আওয়ামী লীগ,সভাপতি অর্ধেন্দু দেব বিভুল, শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবের সভাপতি বিশ্বজ্যোতি চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক ইমাম হোসেন সোহেল, শ্রীমঙ্গল উপজেলা প্রশাসন, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, সাংবাদিক ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিগন।

0Shares

Comment here