জাতীয়প্রযুক্তিরকমারিরাজনীতি

স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন করতে কমিটি করেছে বিএনপি

স্টাফ কোয়ার্টার : আগামী ২৬ মার্চ থেকে স্বাধীনতার সূবর্ণ জয়ন্তীর বছরব্যাপী কর্মসূচি শুরু করতে জাতীয় কমিটি ও স্টায়ারিং কমিটির বাইরে আরো ২৫টি কমিটি গঠন করেছে বিএনপি। এর মধ্যে ১৫টি বিষয়ভিত্তিক কমিটি এবং ১০টি বিভাগীয় কমিটি।

মঙ্গলবার গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির স্বাধীনতার সূবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন কমিটির আহবায়ক ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন এই ২৫টি কমিটির নাম ঘোষণা করেন। সংবাদ সম্মেলনে সূবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন কমিটির যে লেগো করা হয়েছে তার নিচে লেখা রয়েছে ‘ ২৬ মার্চ, ১৯৭১ যেখান থেকে শুরু।

স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তির বছর ব্যাপী অনুষ্ঠান সুন্দরভাবে করতে খন্দকার মোশাররফকে আহবায়ক ও আব্দুস সালামকে সদস্য সচিব করে ১৩৪ সদস্যের জাতীয় কমিটি করা হয়। এতে স্থায়ী কমিটি, ভাইস চেয়ারম্যান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্যসহ কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ রয়েছে। এছাড়া পুরো কার্যক্রম তদারকিতে ৭ সদস্যের একটি স্টিয়ারিং কমিটিও করা হয়েছে।

খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, আমরা বিএনপির পক্ষ থেকে এই সূবর্ণ জয়ন্তী পালনকে অত্যন্ত গুরুত্ব দিচ্ছি। এজন্য দিয়েছি যে, বিএনপি স্বাধীনতার ঘোষক শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের প্রতিষ্ঠিত দল এবং মুক্তিযোদ্ধাদের দল। এজন্য আমাদেরই সূবর্ণ জয়ন্তী পালন দায়িত্ব মনে করি। আমাদের কর্মসূচি থাকবে সারা বছরব্যাপী। শুধু ঢাকায় নয়, প্রত্যেক সিটি করপোরেশন, প্রত্যেক জেলা সদর এবং উপজেলায় তৃণমূল পর্যন্ত পালন করবো। বহিঃবিশ্বের বিভিন্ন দেশের রাজধানীতে আমরা অনুষ্ঠানের কর্মসূচি করব। কর্মসূচিগুলো সমন্বয় করতেই ১০টি বিভাগীল কমিটি ও ১৫টি বিষয়ভিত্তিক কমিটিগুলো গঠন করেছি।

সম্প্রতি শোকজ পাওয়া দুই ভাইস চেয়ারম্যান অবসরপ্রাপ্ত মেজর হাফিজ উদ্দিন আহমদ ও শওকত মাহহুদও জাতীয় কমিটিতে রয়েছেন। এছাড়া হাফিজ বরিশাল কমিটিতে এবং শওকত মাহমুদ মিডিয়া কমিটিতে সদস্য হিসেবে আছেন।

বিষয়ভিত্তিক কমিটি: আইনের শাসন ও মানবাধিকার কমিটির আহবায়ক ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ এবং সদস্য সচিব ব্যারিস্টার মাহবুবউদ্দিন খোকন ও অ্যাডভোকেট আসাদুজ্জামান আসাদ। মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মাননা কমিটির আহ্বায়ক অবসরপ্রাপ্ত মেজর শাহজাহান ওমর বীর উত্তম, সদস্য সচিব অবসরপ্রাপ্ত কর্ণেল জয়নুল আবেদীন। প্রচার কমিটির আহ্বায়ক গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, সদস্য সচিব শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি। সেমিনার ও সিম্পোজিয়াম কমিটির আহবায়ক ড. আব্দুল মঈন খান, সদস্য সচিব ইসমাইল জবিউল্লাহ। প্রকাশনা কমিটির আহবায়ক আবদুল্লাহ আল নোমান, সদস্য সচিব হাবিবুল ইসলাম হাবিব। স্মরণিকা কমিটির আহ্বায়ক ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, সদস্য সচিব আব্দুস সালাম। স্বরচিত কবিতা ও চিত্রাংকর প্রতিযোগিতা কমিটির আহবায়ক সেলিমা রহমান, সদস্য সচিব আবদুল হাই শিকদার। মিডিয়া কমিটির আহবায়ক ইকবাল হাসান মাহুমদ টুকু, সদস্য সচিব শামা ওবায়েদ। সাংস্কৃতিক কমিটির আহবায়ক গাজী মাজহারুল আনোয়ার, সদস্য সচিব আশরাফ উদ্দিন আহমেদ উজ্জ্বল। রচনা প্রতিযোগিতা কমিটির অধ্যাপক মুস্তাহিদুর রহমান, সদস্য সচিব প্রফেসর এবিএম ওবায়দুল ইসলাম। র‌্যালি কমিটি আহ্বায়ক মো. বরকত উল্লাহ বুলু, সদস্য সচিব হাবিব উন নবী খান সোহেল। সাজসজ্জা, মুক্তিযুদ্ধের বইমেলা ও চিত্র প্রদর্শনী কমিটির আহবায়ক আমান উল্লাহ আমান, সদস্য সচিব সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স। ক্রীড়া উপকমিটি আহ্বায়ক অবসপ্রাপ্ত লে. কর্ণেল এমএ লতিফ খান, সদস্য সচিব আমিনুল হক। স্বাধীনতার সূবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন কমিটির সচিবালয়ের আহবায়ক বিজন কান্তি সরকার, সদস্য সচিব জেড খান মো. রিয়াজ উদ্দীন নসু। চিকিৎসা ও সেবা কমিটির আহবায়ক ডা. ফরহাদ হালিম ডোনার, সদস্য সচিব ডা. হারুন-অর-রশিদ।

বিভাগীয় কমিটিসমূহ:

ঢাকা বিভাগে আহবায়ক মির্জা আব্বাস, সদস্য সচিব ফজলুল হক মিলন। চট্টগ্রাম বিভাগে আহবায়ক আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সদস্য সচিব মাহবুবে রহমান শামীম। রাজশাহী বিভাগে আহবায়ক মিজানুর রহমান মিনু, সদস্য সচিব রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু। খুলনা বিভাগে আহবায়ক নিতাই রায় চৌধুরী, সদস্য সচিব নজরুল ইসলাম মঞ্জু। বরিশাল বিভাগে আহবায়ক সেলিমা রহমান, সদস্য সচিব মজিবুর রহমান সারোয়ার। ময়মনসিংহ বিভাগে আহবায়ক নজরুল ইসলাম খান, সদস্য সচিব মো. শরীফুল আলম। ফরিদপুর বিভাগে আহবায়ক অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল রুহুল আলম চৌধুরী, সদস্য সচিব সেলিমুজ্জামান সেলিম। সিলেট বিভাগে আহবায়ক আরিফুল হক চৌধুরী, সদস্য সচিব ডা. সাখাওয়াত হাসান জীবন। কুমিল্লা বিভাগে আহবায়ক মনিরুল হক চৌধুরী, সদস্য সচিব মো. মোস্তাক মিয়া। রংপুর বিভাগে আহ্বায়ক ব্যারিস্টার মুহাম্মদ জমির উদ্দিন সরকার, সদস্য সচিব আসাদুল হাবিব দুলু।

 

0Shares

Comment here