জাতীয়ধর্মকর্মপ্রযুক্তিরকমারিরাজনীতি

চাল চুরির অভিযোগে ইউপি চেয়ারম্যান চূড়ান্ত বরখাস্ত

পাথরঘাটা প্রতিনিধি জয়নাল আবেদীন টুকু : জেলেদের জন্য বরাদ্দ ভিজিএফ চাল চুরির অভিযোগে বরগুনার পাথরঘাটা উপজেলার কাকচিড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন পল্টুকে বরাখাস্ত করা হয়েছে। ১০ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয়ের উপসচিব মোহাম্মদ ইফতেখার আলম চৌধুরি স্বাক্ষরিত এক আদেশে আলাউদ্দীন পল্টুকে বরখাস্ত করা হয়।

সরকারের সাড়ে ২৭ হাজার কেজি চাল আত্মসাতের অভিযোগে ১৬ এপ্রিল দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয় পটুয়াখালীর উপসহকারী পরিচালক আরিফ হোসেন বাদী হয়ে বরগুনার পাথরঘাটা উপজেলার কাকচিড়া ইউপি চেয়ারম্যান মো. আলাউদ্দীন পল্টুর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।
মামলার অভিযোগে বলা হয়, বরগুনা জেলার পাথরঘাটা উপজেলার ৬ নং কাকচিড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলাউদ্দীন পল্টু ৫৫০টি জেলে পরিবারের ফেব্রুয়ারি ও মার্চ মাসের ভিজিএফ-এর চাল স্থানীয় ট্যাগ অফিসারকে না জানিয়ে মাস্টার রোলে সঠিক বিতরণ দেখালেও উপকারভোগীদের ৮০ কেজি চালের পরিবর্তে ৩০ কেজি করে চাল বিতরণ করেন। এভাবে তিনি ৫৫০টি পরিবারের ২৭,৫০০ কেজি চাল আত্মসাৎ করেন। যার সরকারি মূল্য প্রায় ১২ লাখ টাকা। এই অভিযোগে তার বিরুদ্ধে দণ্ডবিধির ৪০৯ ধারাসহ ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারায় মামলাটি দায়ের করা হয়।

এর আগে গত ৪ এপ্রিল চাল চুরির অভিযোগে চেয়ারম্যান পল্টুকে গোয়েন্দা পুলিশ আটক করে পাথরঘাটা থানায় সোপর্দ করে। ১০ জুন আদালত থেকে জামিনে আসেন পল্টু। গত ২২ জুলাই উচ্চাদালত বরখাস্ত আদেশ স্থগিত করে। কিন্ত ১৫ সেপ্টেম্বর সুপ্রীম কোর্ট হাইকোর্টের স্থগিতাদেশ বাতিল করে সাত দিনের মধ্যে পুনরায় হাইকোর্টে আপিলের আবেদনের আদেশ দেন। পুনরায় হাইকোর্টে আবেদন করেন পল্টু। কিন্ত হাইকোর্ট তার বরখাস্ত বহাল রেখে আদেশ প্রদান করেন।

পাথরঘাটা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোস্তফা গোলাম কবির জানান, চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন পল্টু চাল বিতরণ ব্যপকভাবে অনিয়ম করেছে। তার এলাকায় বরাদ্দকৃত ৪৪ মেট্রিক টন চালের মধ্যে মাত্র সাড়ে ১৬ মেট্রিক টন চাল বিতরণের সঠিক প্রমাণ দিতে পেরেছে। বাকি সাড়ে ২৭ মেট্রিক টন চাল বিতরণের কোন সঠিক প্রমাণ দিতে পারেনি চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন পল্টু।

0Shares

Comment here