জাতীয়প্রযুক্তিরকমারিরাজনীতিস্বাস্থ্যপাতা

সব প্রকল্পে দেরি হওয়ার কারন কি, প্রশ্ন প্রধানমন্ত্রীর

দিগন্তর ডেস্ক  :প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, উন্নয়ন প্রকল্পের মেয়াদ ও টাকা বাড়ানোর ধারা বন্ধ করতে হবে। ছোট প্রকল্পগুলোতেও মেয়াদের মধ্যে কাজ সম্পন্ন করতে না পারার কারণ খোঁজে বের করতে হবে।

মঙ্গলবার (৮ ডিসেম্বর) জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় সংশোধনের জন্য উপস্থাপিত একটি প্রকল্প নিয়ে আলোচনার সময় প্রধানমন্ত্রী এ নির্দেশনা দেন বলে পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য অধ্যাপক শামসুল আলম জানান।

গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে এই বৈঠকে যুক্ত হয়ে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী। সাধারণত পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান একনেক সভার পর সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন।

তিনি কোভিড-১৯ আক্রান্ত হওয়ায় পরিকল্পনা সচিব মো. আসাদুল ইসলাম ব্রিফিংয়ে আসতেন। তিনিও অসুস্থ হওয়ায় মঙ্গলবার ব্রিফিংয়ে আসেন পরিকল্পনা কমিশনের সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের সদস্য অধ্যাপক ড. শামসুল আলম।

তিনি বলেন, ‘কৃষি তথ্য সার্ভিস আধুনিকায়ন ও ডিজিটাল কৃষি তথ্য ও যোগাযোগ শক্তিশালীকরণ’ প্রকল্পের মেয়াদ ও ব্যয় বৃদ্ধি করে সংশোধনের জন্য এদিন একটি প্রস্তাব বৈঠকে উপস্থাপন করা হয়।

এর ওপর আলোচনার সময় প্রধানমন্ত্রী জানতে চান, সব প্রকল্পে দেরি হচ্ছে কেন?

২০১৮ সালের জানুয়ারিতে শুরু হওয়া এ প্রকল্প ২০২০ সালের জুনের মধ্যে শেষ করার লক্ষ্যমাত্রা ছিল। তখন প্রকল্পটির ব্যয় ধরা হয়েছিল ৬৮ কোটি ৭১ লাখ টাকা।

এখন নির্ধারিত সময়ে প্রকল্পটি শেষ করতে না পারায় ৪১ কোটি ২৯ লাখ টাকা ব্যয় বাড়িয়ে ১০৯ কোটি ৯০ লাখ টাকার সংশোধিত প্রস্তাব একনেকে তোলা হয়।

বৈঠক শেষে ব্রিফিংয়ে শামসুল আলম বলেন, প্রকল্পটি নিয়ে আলোচনার সময় সরাসরি প্রকল্প পরিচালকের কাছে প্রধানমন্ত্রী জানতে চেয়েছেন- প্রকল্প শেষ করতে না পারার কারণ কী?

কিন্তু প্রকল্প পরিচালক বৈঠকে উপস্থিত না থাকায় অন্য কেউ আর বৈঠকে প্রধানমন্ত্রীরর প্রশ্নের উত্তর দেননি।

তখন প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ‘প্রকল্প দ্রুত বাস্তবায়নের পদক্ষেপ নেন। সব প্রকল্পে দেরি হওয়ার কারণ কী। এটা একটা ছোট টাকার প্রকল্প। এইটাতো এতদিন লাগার কথা না।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেছেন, প্রকল্পতো শেষ হওয়ার পথে, সময় আরও দুই বছর বাড়াচ্ছেন কেন? ৬৮ কোটি টাকাকে ১০৯ কোটি টাকা করা হচ্ছে সময় বাড়ানোর জন্য’।

শামসুল আলম জানান, প্রকল্প পরিচালককে ডেকে ওই প্রস্তাব পর্যালোচনা করার জন্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, সকল প্রকল্প যেন যথাসময়ে শেষ হয় সেই ব্যবস্থা নিন। এবং কেন দেরি হচ্ছে, সেই কারণ অনুসন্ধান করুন।

0Shares

Comment here