জাতীয়রকমারিরাজনীতিস্বাস্থ্যপাতা

ইসলামপুরে নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে হানাদার মুক্ত দিবস পালিত

এস.এম. হোসেন রানা ইসলামপুর প্রতিনিধি : জামালপুরের ইসলামপুরে নানা উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে হানাদার মুক্ত দিবস পালিত হয়েছে। ৭১’র এইদিনে মরহুম বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহ্ মোহাম্মদ জালাল উদ্দিনের নেতৃত্বে বাংলার অকুতোভয় বীর মুক্তিযোদ্ধারা পাক-হানাদার বাহিনীকে পরাজিত করে ৭ই ডিসেম্বর ইসলামপুর উপজেলায় প্রথম স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করেন।

দিবসটি উপলক্ষে (৭ডিসেম্বর) সোমবার উপজেলা পরিষদ চত্বর থেকে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালী বের করা হয়। র‌্যালীতে মুক্তিযোদ্ধাসহ বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষ অংশ গ্রহণ করে। র‌্যালীটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে ঐতিহাসিক থানামোড়স্থ বটতলা চত্বরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এস.এম মাজহারুল ইসলামের সভাপতিত্বে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের ধর্ম বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব ফরিদুল হক খান দুলাল এমপি।
অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- সাবেক কমান্ডার মানিকুল ইসলাম মানিক,উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এড.জামাল আব্দুন নাছের বাবুল, বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহাদৎ হোসেন স্বাধীন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি জামান আবু নাছের চৌধুরী চার্লেস, যুগ্ম সম্পাদক উপাধ্যক্ষ ফরিদ উদ্দিন আহমেদ,ইসলামপুর থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল্লাহ আল মামুন,কমরেড মাজহারুল ইসলাম ও পৌর আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি নুর ইসলাম নুর প্রমুখ।

উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক সহ কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহাদৎ হোসেন স্বাধীন তার বক্তব্যে  বলেন- মরহুম বীর মুক্তিযোদ্ধা কোম্পানী কমান্ডার শাহ্ মোহাম্মদ জালাল উদ্দিনের নির্দেশে আমরা মুক্তিযোদ্ধারা ইসলামপুর সিরাজাবাদ এলাকায় ব্রহ্মপুত্র নদীর পাড়ে একটি ক্যাম্প স্থাপন করে সেখান থেকে গেরিলা যুদ্ধ চালাই। মুক্তিযুদ্ধের শেষ পর্যায়ে পাক-হানাদার বাহিনীর ক্যাম্প দখল করার জন্য ৬ ডিসেম্বর দুপুরে ইসলামপুরের পলবান্ধা পশ্চিম বাহাদুরপুর প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠ সংলগ্ন সিরাজাবাদ রোডে অবস্থান করে চারটি ভাগে বিভক্ত হয়ে হানাদার বাহিনীর ক্যাম্পকে উদ্দেশ্য করে দুপুর থেকে পরদিন ভোর পর্যন্ত একটানা যুদ্ধ করে যাই।

মুক্তিযোদ্ধাদের আক্রমনে টিকে থাকতে না পেরে হানাদার বাহিনীরা পালিয়ে যায়। হানাদার বাহিনী ইসলামপুর থেকে পালিয়ে যাওয়ার পর ৭ ডিসেম্বর বেলা ১১ টায় ইসলামপুর থানা প্রশাসন, আওয়ামীলীগ নেতা সহ হাজারও মুক্তিকামী জনতা আনন্দ উল্লাস করে ইসলামপুর থানা চত্বরে সমবেত হয়। সেই সময় বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহ মোহাম্মদ জালাল উদ্দিন ইসলামপুরের মাটিতে প্রথম বিজয় পতাকা উত্তোলন করেন। সেই দিন থেকেই ইসলামপুরের মাটি শত্রুমুক্ত ঘোষণা করা হয়।

 

 

0Shares

Comment here