অর্থনীতিজাতীয়রকমারি

আক্কেলপুরে আলু বীজের তীব্র সংকট: সুযোগ নিচ্ছেন ব্যবসায়ীরা

আক্কেলপুর প্রতিনিধি: আলুবীজ সংগ্রহের জন্য লাইন দিতে হচ্ছে কৃষকদের। এ সুযোগে বাড়তি দাম নিচ্ছেন ব্যবসায়ীরা। হিমাগরে সংরক্ষণ করা আলুর দাম বেশি পেয়ে এ বছর মৌসুমের শুরু থেকে আলু চাষের ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছেন জয়পুরহাটের আক্কেলপুর আলু চাষিরা। উন্নত জাতের আলুবীজ সংগ্রহে তারা ভিড় করছেন বীজ ব্যবসায়ীদের প্রতিষ্ঠানে। ব্যাপক চাহিদার সুযোগে নির্ধারিত দামের চেয়েও বেশি মূল্যে বীজ বিক্রি করছেন বীজ ব্যবসায়ীরা। এ অবস্থায় আলুর উৎপাদন খরচ বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কায় পড়েছেন কৃষকরা।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ শহিদুল ইসলাম ‘দিগন্তরকে’ বলেন, আক্কেলপুরে এবার আলুর লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৬ হাজার হেক্টর। তার মধ্যে গ্যানোলা, অ্যাস্টেরিক, ক্যারেজ, ডায়মন্ড, ক্যাটিলাল ও পাকরী, সর্বমোট এ পর্যন্ত রোপন হয়েছে ৩ হজার ৭‘শ’ হেক্টর ।

ধান কাটার পর আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় উপজেলায় এবার ব্যাপকভাবে আগাম আলু চাষের প্রস্তুতি শুরু করেছে কৃষকরা। কিন্তু শুরুতেই বীজ সংগ্রহে চরম সঙ্কটে পড়ছে তারা। বীজ সঙ্কটের কারণে বর্তমানে বাজারে ব্র্যাকের সরবরাহকৃত ৪০ কেজির প্রতি বস্তা অ্যাস্টেরিক, ক্যারেজ ও ডায়মন্ড জাতের আলুবীজ উপজেলার বিভিন্ন বাজারে বিক্রি হচ্ছে আড়াই হাজার থেকে তিন হাজার টাকায়। অগ্রিম টাকা দিয়েও বীজ পাচ্ছেন না কৃষকরা । অথচ কোম্পানির নির্ধারিত ডিলারদের ‘এ’ গ্রেড আলুবীজ প্রতিমণ ২ হাজার ২০০ টাকা এবং ‘বি’ গ্রেড ২ হাজার ৮০ টাকায় বিক্রি করা কথা। কিন্তু, চাহিদার কারণে বাজারে সঙ্কটের অজুহাতে ইচ্ছেমতো দাম নিচ্ছেন বীজ ব্যবসায়ীরা।

আক্কেলপুর বাজারের রাজ্জাক ট্রেডার্স এর মালিক ‘দিগন্তরকে’ জানান, আমি কণিকা ও হীরা বীজের ডিলার কিন্তু চাহিদা অনুযায়ী কোম্পানি আমাকে বীজের আলু সরবরাহ করে নাই। আমি এলাকার কৃষকদের মাঝে বীজের আলু সঠিক সময়ে সরবরাহ করতে পারি নি।

আক্কেলপুর কলেজ বাজারের মেসার্স কামাল ট্রেডার্স এর মালিক ‘দিগন্তরকে’ বলেন, আমি ব্র্যাকের বীজের সাব-ডিলার, জয়পুরহাট জেলার মন্ডল ট্রেডার্স এর নিকট হতে প্রতি বছর ব্র্যাক বীজের আলু চাহিদা অনুযায়ী নেই। কিন্ত এবছর আমাদেরকে চাহিদা অনুযায়ী আলুর বীজ সরবরাহ করে নাই। বাজরে ব্যাপক ব্র্যাক বীজের আলু চাহিদা রয়েছে। কিছু অসাধু ব্যবসায়ী এই সুযোগ নিয়ে কৃষকদের কাছে বেশি দামে বিক্রি করছে।

উপজেলার বিভিন্ন বাজার ও কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বৃষ্টি না হওয়ায় এবার আগাম আলু চাষে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে কৃষকরা । ফলে গত মাসের শেষ সপ্তাহ থেকেই বীজের চাহিদা দেখা দিলে বাজারে সবার আগে বীজ সরবরাহ করে ব্র্যাক সিড আন্ড অ্যাগ্রো এন্টারপ্রাইজ।

উপজেলার শান্তা গ্রামের আব্দুল হালিম ‘দিগন্তরকে’ বলেন এবার ভালো ফলন হওয়ার আশায় দেড়-বিঘা জমিতে আলু চাষ করার ইচ্ছে থাকলেও বীজ বাজারে চাহিদা অনুযায়ী সঙ্কট ও দাম ক্রয় ক্ষমতার বাহিরে।

পৌর সভার ২নং ওয়াডের ছোট কৃষক মিঠু মহন্ত জানান, আমার এক বিঘা জমিতে ধান কেটে আলু রোপনের জন্য বাজারে আলুর বীজ কিনতে হয়েছে বেশি দামে। আলু ফলনের পরে যদি নায্য দাম না পাই তাহলে লোকসানের মুখ দেখতে হবে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা বলেন, আক্কেলপুর উপজেলায় আলু চাষের লক্ষ্য মাত্রা অর্জন হবে।বাজারে বি এ ডি সির প্রচুর বীজ আলু সরবরাহ রয়েছে । আলু বীজের মানও ভালো। আলু চাষীরা তাদের চাহিদা অনুযায়ী বীজের আলু কিনতে পারবেন।

চৈতন্য চ্যাটার্জী
আক্কেলপুর, জয়পুরহাট

0Shares

Comment here