জাতীয়ধর্মকর্মরকমারিলাইফস্টাইল

আক্কেলপুরে বস্তাবন্দী ৯ম শ্রেণির ছাত্রের লাশ উদ্ধার

আক্কেলপুর প্রতিনিধিঃ জয়পুরহাটের আক্কেলপুরে রেললাইনের পাশ থেকে বস্তাবন্দী ৯ম শ্রেণির স্কুল ছাত্রের লাশ উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ।

বদলগাছী থানা ও আক্কেলপুর থানা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গত ৬ নভেম্বর বদলগাছী উপজেলাধীন খাদাইল গ্রামের আলামিন হোসেনের পুত্র খাদাইল উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী নাজমুল হোসেন (১৪)কে কেবা-কাহারা অপহরন করে নিয়ে যায়।

অপহরনকারীরা মুঠোফোনে অপহৃত নাজমুলের পিতার নিকট ১৫ লক্ষ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে, সন্তানকে উদ্ধারের চেষ্টায় আলামিন হোসেন বিকাশে মুক্তিপণের কিছু টাকা দেওয়ার কথা বললেও অপহরণ কারীরা আলামিনের কথায় রাজি না হয়ে নাজমুলকে কোন একসময় মেরেফেলে বস্তাবন্দী করে আক্কেলপুর উপজেলাধীন বেলায়গেট এলাকার রেললাইনের পশ্চিম পাশে রেখে যায়। আজ ১১ নভেম্বর সকাল আনুমানিক ৭টার দিকে কৃষকরা ধান কাটতে গেলে বস্তাটি দেখে সন্দেহ হলে আক্কেলপুর থানায় খবর দেয়, আক্কেলপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে বস্তাবন্দী লাশ দেখতে পায়, পরে থানায় নেওয়া হয় এবং লাশটি ময়নাতদন্তের জন্য জয়পুরহাট জেলা হাসপাতালে প্রেরণের প্রস্তুতি চলছে বলে জানা যায়।

নিহত নাজমুলের দাদা আব্দুস সালাম “দিগন্তরকে” জানান, গত শুক্রবার সন্ধ্যা থেকে তার নাতী নিখোজ হওয়ায় থানায় অভিযোগ করার পরে আজ বুধবার নাজমুলের লাশ রেললাইনের পাশে পাওয়া যায়।

নিহত নাজমুলের পিতা মোঃ আলামিন হোসেন “দিগন্তরকে” জানান, গত শুক্রবার আমার ভাই মোঃ হেলাল এর মেয়ে আমার ভাতিজি মোছাঃ তানজিলা বেগম এর বিবাহে আমি ও আমার পরিবারের স্ত্রী এবং সন্তানসহ ০৬ জন সদস্য বিবাহ অনুষ্ঠানে যাই। পরে সন্ধ্যার দিকে পরিবারের পাঁচ জন সদস্য উপস্থিত থাকলেও আমার ছেলে নাজমুল উপস্থিত নেই।গত শনিবারে আমার ছেলে নিখোঁজ হওয়ার পর অপরহনকারীরা আমার ছেলেকে ছাড়ার জন্য আমার কাছ থেকে ১৫ লক্ষ টাকা চায়। আমি কিছু টাকা দিতে রাজি হই পরে বিকাশ নাম্বার দিচ্ছি, দিবো বলে ফোন কেটে দেয় মর্মে অজ্ঞাত ৪/৫ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ করি।

তার অভিযোগের প্রেক্ষিতে বদলগাছী থানা পুলিশ ১।মোঃ শিশু মন্ডল, পিতাঃ মোঃ আজম মন্ডল, ২। মোঃ আজম মন্ডল, পিতাঃ মোঃ মোকলেছর রহমান, ৩। মোছাঃ রিনা বেগম, পিতা/স্বামীঃ মোঃ আজম মন্ডল, সর্ব সাং খাদাইল, উপজেলা বদলগাছী, ৪। মোঃ সোহাগ হোসেন পিতাঃ মৃত উম্মত মন্ডল গ্রামঃ তিলকপুর, নওগাঁ সদর, নওগাঁ।
আক্কেলপুর থানা ও বদলগাছী থানা পুলিশ লাশটির বিষয় নিশ্চিত করেন এবং আইনী ব্যবস্থা অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছেন।
………………………
প্রতিনিধি
চৈতন্য চ্যাটার্জী
আক্কেলপুর, জয়পুরহাট।

0Shares

Comment here