জাতীয়

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ, স্পেনে কারফিউ জারি

অনলাইন ডেস্ক : বিশ্বব্যাপী বেড়ে চলেছে করোনাভাইরাস সংক্রমণ ও মৃতের তালিকা। করোনায় দ্বিতীয় ঢেউয়ের কবলে পড়া ইউরোপের দেশগুলো পরিস্থিতি সামাল দিতে নতুন করে হিমশিম খেতে হচ্ছে।

স্পেন, ফ্রান্স, জার্মানি ও পোলান্ডসহ অনেক দেশেই এখন প্রতিদিনই সংক্রমণ বেড়েই চলেছে। ফলে দেশগুলোতে নতুন করে কড়াকড়ি আরোপ করা হচ্ছে।


এদিকে করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের প্রভাবে সবচেয়ে কঠিন অবস্থায় আছে স্পেন। এরইমধ্যে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে কারফিউয়ের পাশাপাশি দেশটিতে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে।

রোববার (২৫ অক্টোবর) থেকেই রাত্রিকালীন কারফিউ কার্যকরের ঘোষণা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী পেদ্রো সানচেজ। রাত ১১টা থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত কারফিউ জারি থাকবে বলে জানানো হয়েছে।

এছাড়া স্থানীয় প্রশাসন এক অঞ্চল থেকে অন্য অঞ্চলে লোকজনের ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে পারবে বলেও উল্লেখ করেন তিনি। ১৫ দিনের জন্য জরুরি অবস্থা এবং কারফিউ জারি করা হয়েছে। তবে পার্লামেন্টে এ সময় বাড়িয়ে ছয় মাস করার প্রস্তাব তুলবেন বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী পেদ্রো সানচেজ।

রোববার টেলিভিশনে দেওয়া এক ভাষণে প্রধানমন্ত্রী সানচেজ বলেন, পরিস্থিতি চরম পর্যায়ের দিকে ধাবিত হচ্ছে। এ পরিস্থিতি অর্ধশতাব্দীর মধ্যে সবচেয়ে গুরুতর বলে উল্লেখ করেন তিনি।

স্পেনের অর্ধেকের বেশি রাজ্যেই কঠোর বিধি-নিষেধ জারি করা হয়েছে। একই ধরনের কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছিল গত এপ্রিলে যখন করোনার প্রথম প্রাদুর্ভাব শুরু হয় তখন। দেশটিতে ইতোমধ্যেই সংক্রমণ ১০ লাখ ছাড়িয়ে গেছে। অপরদিকে মারা গেছে ৩৫ হাজারের বেশি মানুষ।

এদিকে বিশ্বে করোনায় আক্রান্ত ও মৃতের দিক থেকে তালিকায় শীর্ষে থাকা যুক্তরাষ্ট্রের সবকটি অঙ্গরাজ্যেই বাড়ছে করোনার সংক্রমণ। দেশটিতে এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ৮৮ লাখ ৮৯ হাজার ১৭৯ জন। মৃত্যু হয়েছে দুই লাখ ৩০ হাজার ৫১০ জনের।

দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা ভারতে এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ৭৯ লাখ ৯ হাজার ৫০ জন এবং মৃত্যু হয়েছে এক লাখ ১৯ হাজার ৩০ জনের।

তৃতীয় অবস্থানে থাকা লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিলে এখন পর্যন্ত করোনায় ৫৩ লাখ ৯৪ হাজার ১২৮ জন আক্রান্ত হয়েছে। মৃত্যু হয়েছে এক লাখ ৫৭ হাজার ১৬৩ জনের।

চতুর্থ অবস্থানে থাকা রাশিয়ায় এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১৫ লাখ ১৩ হাজার ৮৭৭ জন। এর মধ্যে মারা গেছেন ২৬ হাজার ৫০ জন।

পঞ্চম স্থানে উঠে আসা স্পেনে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ১১ লাখ ৩৮ হাজার ৫০৭ জন। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৩৪ হাজার ৭৬১ জনের।

0Shares

Comment here