অর্থনীতিজাতীয়প্রযুক্তিরুপসী বাংলা

সংকটের অজুহাতে বাড়ল চালের দাম

এম এ জাহান || নানা উছিলায় বাড়ছে নিত্যপণ্যের দাম। পেঁয়াজের পর এবার বাড়ার তালিকায় যুক্ত হয়েছে চাল। গত কয়েকদিনে বাজারে সব ধরনের চালের দাম বেড়েছে। চালের বাজারে নতুন সংকট দেখা দিয়েছে, আর সেটি হচ্ছে- গরিব মানুষের মোটা চালের সরবরাহ কম। ফলে চাপ পড়েছে সব ধরনের চিকন চালের ওপর।

তবে খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার আবারো হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেছেন, ‘চালের বাজার নিয়ে কেউ কারসজি করলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। পর্যাপ্ত চাল মজুদ আছে। তাই চাল নিয়ে কোনো ধরনের কারসাজি সরকার বরদাশত করবে না।’

ব্যবসায়ীরা বলছেন, এ কারণেই নাকি বেড়েছে চালের দাম। বাজার ও মান ভেদে প্রতিকেজিতে চালের দাম বেড়েছে ৪ থেকে ৬ টাকা। ৫৪ টাকা কেজি দরের মাঝারি মানের মিনিকেট চাল এখন বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকা কেজি দরে। আর ৫৬ টাকা কেজি দরের নাজিরশাইল চাল বিক্রি হচ্ছে ৬২ টাকা করে। রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে চিত্র তথ্য পাওয়া গেছে।

ব্যবসায়ীরা জানান, চালের এই মূল্য বৃদ্ধির পেছনে কোনো ধরনের কারসাজি নেই। চালের দাম বাড়ার প্রধান কারণ হচ্ছে- প্রথমত, চালের চলতি মৌসুম শেষের দিকে। দ্বিতীয়ত, এবার সারাবছর কেটেছে প্রাকৃতিক দুর্যোগে। প্রথমে হলো শিলাবৃষ্টি। এরপর ঘূর্ণিঝড় আমফানের ছোবল। তারপর দেশের ৩৩ জেলাজুড়ে বন্যা, যা এখনো চলছে।

বছরজুড়ে করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) তাণ্ডব তো রয়েছেই। এর বাইরে এ বছর বৃষ্টিপাতের পরিমাণও বেশি। প্রায় প্রতিদিনই বৃষ্টি হচ্ছে। এসব কারণে বাজারে ধানের সরবরাহ কমে গেছে বিধায় দামও বেশি। ধানের দাম বেশি হলে চালের দাম বাড়বে, এটাই স্বাভাবিক- এমন দাবি ব্যবসায়ীদের।

রাজধানীর চাল ব্যবসায়ীরা বলছেন, মিনিকেট চালের দাম বাড়লে তা সব ধরনের চালের দামের ওপরে প্রভাব ফেলে। কারো কারো অভিযোগ, মিনিকেট চালের দাম বাড়ানোর পেছনে এই চালের উদ্ভাবক কুষ্টিয়ার আবদুর রশিদ দায়ী, যিনি ‘মিনিকেট রশিদ’ নামে পরিচিত। আবদুর রশিদ তার মিনিকেট চালের দাম বাড়িয়ে বিক্রি করছেন বলে বাজারে সব ধরনের চালের দাম বেড়েছে।

এ বিষয়ে জানতে যোগাযোগ করা হলে আবদুর রশিদ বলেন, ‘গত ছয় মাসে আমরা মিনিকেট চালের দাম বাড়াইনি। বাজারে যদি আমার মিনিকেট চালের দাম বেড়ে থাকে, তাহলে তা অন্য কারো কারসাজিতে বেড়েছে। যা আমি জানি না। তবে ধানের সংকট রয়েছে। কারণ, সিজন শেষ। এতে চালের বাজার কিছুটা বাড়তি হতে পারে।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ-টিসিবির হিসাবে, গত এক বছরে গরিব মানুষের মোটা চালের দাম বেড়েছে ২৭ শতাংশ। চিকন চালের দামও বেড়েছে ১৪ শতাংশ। মাঝারি মানের বিভিন্ন চাল বিক্রি হয়েছে প্রতিকেজি ৪৮ থেকে ৫৩ টাকা। আর প্রতিকেজি চিকন মিনিকেট চাল বিক্রি হয়েছে বাজারভেদে ৫৬ থেকে ৬০ টাকা। টিসিবির হিসাবে, গত বছরের এই সময়ের তুলনায় এখন মাঝারি মানের চালের দাম ৯ শতাংশ ও সরু চালের দাম ১৫ শতাংশ বেশি।

0Shares

Comment here