খেলার মাঠেপ্রযুক্তিরকমারি

হবিগঞ্জ শহরে অটোরিকশা ও টমটম ভাড়া নিয়ে নৈরাজ্য : নিয়ন্ত্রণে নেই পৌরসভার

হোসাইন মির্জা, চুনারুঘাট (হবিগঞ্জ)প্রতিনিধি :- একাধিকবার মৌখিক অভিযোগ জানানোর পরও ব্যাটারী চালিত অবৈধ টমটম মালিক চালকদের নিয়ন্ত্রণে আনতে পারছে না হবিগঞ্জ পৌরসভা।

যত্রতত্র পার্কিং আর আগের ৫ টাকা ভাড়া নিয়ে যাত্রীদের সাথে বাকবিতন্ডা নিত্যদিনের। বিশেষ করে নারী যাত্রীদের সঙ্গে জোরজবরদস্তি ও খারাপ ব্যবহারের ঘটনা বেড়ে যাওয়ায় টমটম এখন হবিগঞ্জবাসীর মাথা ব্যাথার কারণ হয়ে দাড়িয়েছে।

সম্প্রতি টমটমের সর্বনিম্ন ৫ টাকা ভাড়া নিয়ে সংবাদপত্র ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক আলোচনা সমালোচনা হলেও আইন কানুনের তোয়াক্কা করছে না টমটম চালক ও মালিকরা।

তারা তাদের মতো করে সর্বনিম্ন ১০ টাকা ভাড়াই নিচ্ছে। পুরুষ যাত্রীরা এর প্রতিবাদ করলে ৫ টাকা আর না করলে ১০ টাকা নিচ্ছে অপরদিকে কোনো কারণ ছাড়াই মহিলা যাত্রীদের কাছ থেকেই ১০ টাকা করে নিচ্ছে এসব টমটম চালকরা৷

টমটম চালকরা বলছেন, তারা তালিকা পেয়েছে, তাদেরকে বলা হয়েছে ১০ টাকা করে ভাড়া নিতে। তবে কে বলেছে, কারা বলেছে জানতে চাইলে তারা একেকবার একেক কথা বলছে ৷

তবে পৌরসভা কতৃক ভাড়ার তালিকা দেখতে চাইলেই বাধে বিপত্তি। তারা তালিকা দেখায় একটি সংগঠনের। যে তালিকায় ওই সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের স্বাক্ষর রয়েছে। ওই তালিকায় মেয়রের স্বাক্ষর নেই কেন জানতে চাইলে বাক-বিতন্ডা শুরু হয় প্রায়ই যাত্রীদের সাথে। কোনো কোনো সময় বাকবিতন্ডা হাতাহাতিতেও গড়ায়। চালকদের একটাই কথা ভাড়া বেশি নিলে পৌরসভা কেনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না। আমরাতো লুকিয়ে ১০ টাকা নেই না।

সরেজমিনে দেখা যায়,শহরের বাসা বাড়ির গৃহবধূ ও নারী যাত্রীরা ভাড়া নিয়ে কথা বললেই চরম বিব্রতকর অবস্থায় পড়ছেন। মেয়রকে সাংবাদিকদের মাধ্যমে একাধিকবার অভিযোগ জানানো হলেও মেয়র বলছেন, যদি কেউ খুশি হয়ে ১০ টাকা দেয় তবে ভিন্নকথা, না হলে তিনি ব্যবস্থা নিবেন এবং ওই সংগঠনের লোকজনের সাথে কথা বলবেন। কিন্তু তার আশ্বাসের প্রতিফলন ঘটেনি গত এক সপ্তাহেও ।

সচেতন মহলের অভিমত , ১২শ টমটম ছাড়াও বৈধ অবৈধ মিলিয়ে প্রায় ৩-৪ হাজার টমটম চলাচল করছে হবিগঞ্জ শহরে। একদিকে শহরের বৈধ অবৈধ টমটমগুলোর যানজটের সৃষ্টিকে যোগান দিচ্ছে বিভিন্ন ইউনিয়ন থেকে আসা অবৈধ টমটম। যা পৌরবাসীর নাগরিক জীবনকে চরম ভোগান্তিতে ফেলেছে।

জানা যায়, আগে পৌর এলাকার ভেতর সবখানে ভাড়া ছিল ৫ টাকা। তবে স্থান ভেদে অর্থাৎ শহরে প্রবেশপথ পোদ্দার বাড়ি/২নং পুল থেকে চৌধুরী বাজার পর্যন্ত সরাসরি ১০ টাকা এবং চৌধুরী বাজার থেকে পৌর বাসস্ট্যান্ড পর্যন্ত ৫/১০ টাকা নেয়া হতো এবং মানবিক কারণে যাত্রীরাও উল্লেখিত স্থান পর্যন্ত ১০ টাকা ভাড়া দিতে আপত্তি করতেন না। সম্প্রতি মহামারী করোনার সময় জাতীয়ভাবে গণপরিবহণে ৬০ শতাংশ ভাড়া বাড়ানো হলে হবিগঞ্জেও টমটমসহ অন্যান্য গণপরিবহণেও ভাড়ানো হয়।

টমটম চালকরা বলছে, তারা তালিকা পেয়েছে, তাদেরকে বলা হয়েছে ১০ টাকা করে ভাড়া নিতে। তবে কে বলেছে, কারা বলেছে জানতে চাইলে তারা একেকবার একেক কথা বলছে ৷

গত ১ সেপ্টেম্বর থেকে আগের ভাড়া বহাল রাখার সিদ্ধান্ত হলে হবিগঞ্জের সকল গণপরিবহণ আগের ভাড়ায় ফিরে যায়। তবে ফিরেনি বৈধ-অবৈধ টমটম মালিকরা। উল্টো হবিগঞ্জ টমটম মালিক শ্রমিক ঐক্য পরিষদ নামে একটি সংগঠন নিজেদের মনগড়া মতো তালিকা করে। তবে এ সবের থেকে পরিত্রাণ চায় হবিগঞ্জ বাসী।

0Shares

Comment here