জাতীয়রকমারিস্বাস্থ্যপাতা

সরকারি ওয়েবসাইট নকল করে ভূমি মন্ত্রণালয়ে ভুয়া নিয়োগ

 জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক || জাতীয় তথ্য বাতায়নের (পোর্টাল) আওতাধীন ওয়েবসাইটের আদলে ভুয়া ওয়েবসাইট তৈরি করে এর মাধ্যমে ভূমি মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন সংস্থার ভুয়া নিয়োগপত্র ইস্যু করে প্রতারণা করার চেষ্টা করছে প্রতারক চক্র।

রোববার (৬ সেপ্টেম্বর) ভূমি মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন ভূমি প্রশাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের (এলএটিসি) ইলেক্ট্রিশিয়ান মো. রুহুল আমীন এই চাঞ্চল‌্যকর তথ‌্য দিয়েছেন।

এলএটিসি কার্যালয়ের ইলেক্ট্রিশিয়ান রুহুল আমিনকে গত ২১ জুন ৪৬২ নম্বর স্মারকে নিয়োগপত্র দেওয়া হয়। তিনি বর্তমানে এলএটিসিতে কর্মরত।  প্রতারক চক্র তার নামেও ভুয়া নিয়োগপত্র ইস‌্যু করে।

এদিকে, এ ঘটনায় প্রতারক চক্রের বিরুদ্ধে ব‌্যবস্থা নিতে মন্ত্রণালয় থেকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। একইসঙ্গে নিউ মার্কেট থানায় জড়িতদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করার প্রস্তুতি চলছে বলে জানা গেছে।

ভূমি মন্ত্রণালয় জানায়, রুহুল আমীন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেন, কে বা কারা তাকে ফোন করে জানায় তারসহ আরও তিনজনের নামে ‘www.latcgovbd.com’ ওয়েবসাইটে নিয়োগপত্র ইস্যু করা হয়েছে।

পরে জানা যায়, ভূমি প্রশাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের ওয়েবসাইটের আদলে একটি নকল সাইট তৈরি করেছে একটি প্রতারক চক্র।

ভূমি মন্ত্রণালয় জানায়, এলএটিসির প্রকৃত ওয়েবসাইট (www.latc.gov.bd) নকল করে ভুয়া একটি ওয়েবসাইট (www.latcgovbd.com) সৃজন করে মো. রুহুল আমিনসহ আরও তিন ব্যক্তি ‘মো. রায়হান রহমান’, ‘মো. আব্দুস সালাম’ ও ‘মো. আরিফুল ইসলাম’ এর নামে গত ২১ জুন ভুয়া নিয়োগপত্র ইস্যু করেছে প্রতারক চক্র। প্রকৃতপক্ষে এলএটিসি থেকে এ ধরনের কোনো নিয়োগপত্র ইস্যু করা হয়নি। বর্ণিত নিয়োগপত্রটি ভুয়া।  ভুয়া সরকারি ওয়েবসাইট তৈরি, স্বাক্ষর জাল করা ও ভুয়া নিয়োগপত্র দেওয়া একটি গুরুতর ও দণ্ডনীয় ফৌজদারি অপরাধ।

ভূমি মন্ত্রণালয় আরও জানায়, প্রতারক চক্র এলএটিসির আসল ওয়েবসাইট থেকে উক্ত স্মারক ও নিয়োগপত্র সংগ্রহ করে এর একাংশ স্ক্যান করে ব্যবহার করেছে।  যে প্রতারক চক্র প্রকৃত নিয়োগপ্রাপ্ত মো. রুহুল আমিনসহ উপর্যুক্ত তিন ব্যক্তি (যদি নামও ভুয়া না হয়ে থাকে) থেকে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার পরিকল্পনা করছিল কিংবা করছে।

ইতিমধ্যে, এলএটিসি ওয়েবসাইটের মূল পোর্টাল ডেভেলপার এটুআইকে ইমেইলের মাধ্যমে বিষয়টি জানানো হয়েছে। প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করা হয়েছে। এছাড়া বিটিসিএলকে পত্র লিখে ভুয়া সরকারি ওয়েবসাইট সৃষ্টিকারীর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণসহ তাদের নাম ও পূর্ণ ঠিকানা ভূমি প্রশাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রকে জানানোর জন্য অনুরোধ করা হয়েছে। এছাড়া নিউ মার্কেট থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করার প্রস্তুতি চলছে।

ভূমি মন্ত্রণালয় কিংবা এর আওতাধীন দপ্তরে চাকরি দেওয়ার নাম করে কেউ যদি অর্থ দাবি করে, তাহলে সঙ্গে সঙ্গে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে জানাতে সবাইকে পরামর্শ দিয়েছে মন্ত্রণালয়। ভুয়া নিয়োগে বিভ্রান্ত না হয়ে সতর্ক থাকার জন্য সবাইকে অনুরোধ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, নকল ওয়েবসাইটটির ডোমেইনে নামের বানান ভূমি প্রশাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের ওয়েবসাইটের নামের বানানের থেকে আলাদা। তবে খুব কাছাকাছি। ভূমি প্রশাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের প্রকৃত ওয়েবসাইটের অ্যাড্রেস  (www.latc.gov.bd) অন্যদিকে ভুয়া ওয়েবসাইটের অ্যাড্রেস  (www.latcgovbd.com). লক্ষণীয়, ভুয়া ওয়েবসাইটের সেকেন্ড লেভেল ডোমেইন ‘latcgovbd’ এবং টপ লেভেল ডোমেইন ‘.com’ অন্যদিকে ভূমি প্রশাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের প্রকৃত ওয়েবসাইটের অ্যাড্রেসের সেকেন্ড লেভেল ডোমেইন ‘latc’ এবং টপ লেভেল ডোমেইন ‘.gov.bd’ যা কেবল বাংলাদেশ সরকারের জন্য সংরক্ষিত।

0Shares

Comment here