অর্থনীতিখেলার মাঠেজাতীয়স্বাস্থ্যপাতা

ঢাকা-৫ উপ-নির্বাচনে যারা এগিয়ে

দিগন্তর রিপোর্ট: জাতীয় সংসদের ৫টি আসনে উপ-নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী- লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের জন্য মনোয়নপত্র সংগ্রহের আহবান জানানো হয়েছে ১৭ আগষ্ট থেকে।

এদিকে ঢাকা-৫ আসনকে কেন্দ্র করে আরো আগে থেকেই শুরু হয়েছে মনোয়ন প্রতাশীদের প্রচার-প্রচারণা। অন্যান্য বারের চেয়ে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমকে প্রার্থীরা ব্যবহার করছেন বেশি। তবে জনগনের সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগেও এগিয়ে আছেন অনেকে।

এই আসনটিতে সংসদ সদস্য ছিলেন হাবিবুর রহমান মোল্লা। কিন্তু তার মৃত্যুতে আসনটি শূন্য ঘোষনা করে ঢাকা-৫ আসনে উপ-নির্বাচন আহ্বান করা হয়। মনোনয়ন পেতে আওয়ামী লীগ ও শরিক দলের প্রার্থীরা ইতিমধ্যে রাজনীতিক যোগাযোগ শুরু করেছেন।

মহামারী করোনা ভাইরাসের মধ্যেও থেমে নেই মনোনয়ন প্রত্যাশীদের জনসংযোগ। পোষ্টারে পোষ্টারে ছেয়ে গেছে এলাকা। কেউ কেউ আবার আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গ্রিন সিগন্যালের অপেক্ষা করছেন। অন্যদিকে এই আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের ‘আমলনামা’ নিয়েও কাজ করছেন দলের কেন্দ্রীয় নেতারা।

রাজধানী ঢাকার অন্যতম একটি আসন ঢাকা-৫ (ডেমরা-যাত্রাবাড়ী-আংশিক কদমতলী)। হাবিবুর রহমান মোল্লা প্রখ্যাত শ্রমিক নেতাও ছিলেন। তার আসনে এখন মনোনয়ন কে পাবে এ প্রশ্ন সকলের। এই আলোচনাই এখন সর্বত্র। গত ৬ মে হাবিবুর রহমান মোল্লার মৃত্যুতে আসনটি শূন্য ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন।

ঢাকা-৫ আসনে আওয়ামী লীগ থেকে সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে যাদের নাম শোনা যাচ্ছে তারা হলেন, প্রয়াত হাবিবুর রহমান মোল্লার বড় ছেলে ডেমরা থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান মোল্লা সজল, ডেমরা থানা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও ৭০ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আতিকুর রহমান আতিক , ঢাকা মহানগর দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি কামরুল হাসান রিপন, হাজী আব্দুল লতিফ ভূইয়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের সভাপতি ও যাত্রাবাড়ীর আর কে চৌধুরী ডিগ্রি কলেজের ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি রাকিব ভূইয়া প্রমুখ।

আওয়ামী লীগ ছাড়াও ১৪ দলের শরিক জাসদের সহ-সভাপতি ও ঢাকা মহানগরের (পূর্ব) সভাপতি শহীদুল ইসলাম প্রার্থী হিসেবে মাঠে রয়েছেন। মো. শহীদুল ইসলাম বলেন, শরিক দল থেকে ২০০৮, ২০১৪ ও ২০১৮ সালেও মনোনয়ন চেয়েছিলাম। কিন্তু দেয়া হয়নি। ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র নির্বাচন করেছি। কিন্তু শেষ পর্যন্ত কেন্দ্রের নির্দেশে আওয়ামী লীগের প্রার্থীর জন্য কাজ করেছি।

তিনি আরো বলেন, স্বাধীনতা পক্ষের শক্তিকে ভোট দিতে হবে। আমি সাধ্যমতে এলাকার মানুষের সেবা করে যাচ্ছি ও করতে চাই। নির্বাচিত হলে সবাইকে সাথে নিয়ে স্বচ্ছ ও জবাবদিহিতা মূলক অবকাঠামোগত উন্নয়ন, শিক্ষা ও কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করব। সন্ত্রাস, মাদক ও জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে জনমত গড়ে তুলবো।

১৪ দলের সম্ভাব্য এমপি প্রার্থী বীরমুক্তিযোদ্ধা মো. শহীদুল ইসলাম দীর্ঘদিন যাবত যাত্রাবাড়ী ও ডেমরার সর্বত্রই নিজ দলকে সুসংগঠিত করতে এলাকায় গণসংযোগ ও মতবিনিময় সভা করেছেন। করোনাকালে মানুষের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত রাখতে গিয়ে করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন এ ত্যাগী নেতা।

মশিউর রহমান মোল্লা সজল বলেন, বাবার সঙ্গে থেকে পরপর চারটি জাতীয় সংসদ নির্বাচন দেখার অভিজ্ঞতা আমার রয়েছে। এ আসনের প্রতিটি ইউনিট-ওয়ার্ডকে ঢেলে সাজিয়ে বিএনপি-জামায়াত ও জঙ্গিদের প্রতিরোধের মাধ্যমে নাগরিক সমাজের শান্তিতে বসবাসে প্রতি গুরুত্ব দিব।

ঢাকা মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি কামরুল হাসান রিপন বলেন, দলের দুঃসময়ে বিভিন্ন সময়ে নেত্রীর নির্দেশে আন্দোলন-সংগ্রাম করেছি, মনোনয়নের বিষয়ে আমি আশাবাদী।

ডেমরা থানা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও ৭০ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আতিকুর রহমান বলেন, কাউন্সিলর হওয়ার আগেও মানুষের সেবা করেছি। আগামীতেও ঢাকা-৫ আসনের মানুষের আরো ব্যাপক সেবা করতে চাই।

সাবেক ছাত্র নেতা রাকিব ভুইয়া বলেন, সুযোগ পেলে ঢাকা-৫ আসনে অবকাঠামোগত পরিকল্পিত উন্নয়ন করব। এলাকায় সুপেয় পানির ব্যবস্থা ও নিজস্ব জমিতে বঙ্গবন্ধুর নামে নার্সিং ট্রেনিং সেন্টার ও বঙ্গমাতার নামে ফজিলাতুন্নেসা বৃদ্ধাশ্রম নির্মাণের আশাবাদ ব্যক্ত করেন এ নেতা।

উল্লেখ্য, মনোয়নের আবেদনপত্র সংগ্রহ ও জমাদানের শেষ সময় ২৩ আগষ্ট পর্যন্ত।

0Shares

Comment here