জাতীয়প্রযুক্তিরকমারিস্বাস্থ্যপাতা

অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগে মুগদা হাসপাতাল ও হোটেল সুপার স্টারের নথিপত্র তলব

আবুল বাশার || করোনা পরিস্থিতিতে অতিরিক্ত বিলসহ বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির মাধ্যমে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে মুগদা জেনারেল হাসপাতাল ও হোটেল সুপার স্টারের সংশ্লিষ্ট নথিপত্র তলব করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

রোববার (০২ আগস্ট) দুদকের প্রধান কার্যালয় থেকে সংস্থাটির পরিচালক মীর মো. জয়নুল আবেদীন শিবলী সই করা পৃথক চিঠিতে এসব তথ্য ও রেকর্ডপত্র চাওয়া হয়েছে।

চিঠিতে কোভিড-১৯ রোগীদের চিকিৎসা সেবায় নিয়োজিত চিকিৎসক, নার্স  ও অন্যান্য কর্মকর্তা-কর্মচারীদের হোটেলে থাকা-খাওয়াসহ বিভিন্ন তথ্য ও  রেকর্ডপত্র চাওয়া হয়েছে। যা আগামী ৯ আগস্টের (রোববার) মধ্যে সরবরাহ করতে বলা হয়েছে।

দুদকের জনসংযোগ কর্মকর্তা (পরিচালক) প্রনব কুমার ভট্টাচার্য্য এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, মুগদা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক ও অধ্যক্ষ এবং অন্যান্যদের বিরুদ্ধে পরস্পর যোগসাজশে ক্ষমতার   অপব্যবহারসহ বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির মাধ্যমে সরকারি অর্থ আত্মসাতের অভিযোগটির সুষ্ঠু অনুসন্ধানের স্বার্থে এসব তথ্য ও রেকর্ডপত্র চাওয়া হয়েছে।

মুগদা হাসপাতালের কাছে চাওয়া তথ্যের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো – কোভিড-১৯  রোগীদের চিকিৎসা সেবায়  নিয়োজিত  চিকিৎসক, নার্স  ও অন্যান্য কর্মকর্তা-কর্মচারীদের থাকা-খাওয়া, পরিবহন ও আনুষঙ্গিক ব্যয় সংক্রান্ত ‘কোয়ারেন্টাইন এক্সপেন্স’ খাতে ৫০০ শয্যাবিশিষ্ট মুগদা জেনারেল হাসপাতালের অনুকূলে বরাদ্দ অর্থের বরাদ্দপত্র; কোভিড-১৯  রোগীদের  চিকিৎসা সেবায়  নিয়োজিত  চিকিৎসক, নার্স ও অন্যান্য কর্মকর্তা-কর্মচারীদের থাকা-খাওয়ার রেট সংক্রান্ত হোটেল সুপারসহ অন্যান্য হোটেলের সঙ্গে পত্র, হোটেলের দাখিল করা কোটেশন, থাকা-খাওয়ার রেট সংক্রান্ত চুক্তিপত্রের কপি, হোটেল কর্তৃপক্ষ দাখিল করা বিল ও টাকার পরিমাণ, ব্যাংক স্টেটমেন্টসহ এ সংক্রান্ত নথির নোটশিটসহ যাবতীয় রেকর্ডপত্র।

এছাড়া এ পর্যন্ত কোভিড-১৯ রোগীদের চিকিৎসা সেবাদানকারী কতজন ডাক্তার, নার্স ও অন্যান্য ব্যক্তি কোন হোটেলে কতদিন থেকেছেন এবং খাওয়া-দাওয়া করেছেন তাদের ও দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তার বিস্তারিত তথ্যও চাওয়া হয়েছে।

অন্যদিকে হোটলে সুপার স্টারের কাছে যেসব তথ্য চাওয়া হয়েছে এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে – কোভিড-১৯ রোগীদের  চিকিৎসা সেবায় নিয়োজিত  চিকিৎসক, নার্স ও অন্যান্য কর্মকর্তা-কর্মচারীদের থাকা-খাওয়ার রেট, এ সংক্রান্ত সম্পাদিত চুক্তিপত্র ও দাখিল করা বিলের কপি, গ্রাহকের কাছে ভাড়া দেওয়ার ক্যাটাগরি ও তার বিবরণ এবং থাকা-খাওয়ার রেট ইত্যাদি।

একই অভিযোগে হোটেল ৭১ থেকেও এ সংক্রান্ত রেকর্ডপত্র সংগ্রহ করা হয়েছে বলে দুদক সূত্রে জানা গেছে।

0Shares

Comment here