জাতীয়রকমারিস্বাস্থ্যপাতা

দিশেহারা জামালপুরের বানভাসিরা

এস এম দেলোয়ার হোসেন,
জামালপুর প্রতিনিধি | জামালপুরের উজান থেকে নেমে অাসা ভারতীয় পাহারী ঢলে বিভিন্ন অঞ্চল বন্যার পানি প্লাবিত হয়েছে। এতে জামালপুর জেলার ইসলামপুর ও দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার বন্যা পরিস্থিতি দ্রুত অবনতি হচ্ছে।

জামালপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের গেজ পাঠক আব্দুল মান্নান জানান, বাহাদুরাবাদ ঘাট পয়েন্টে বুধবার সকাল ১০ টার সময় যমুনা নদীর পানি বিপদ সীমার ১২৫ সেন্টি মিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

স্থানীয় সুত্রে জানা যায় , গত ১০ দিন আগে আগাম বন্যা পানিতে আমরা অনেক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছি, আবার ৫ দিন ধরে বন্যার পানি দ্রুত বাড়ছে। বন্যায় যমুনা তীরবর্তী চরাঞ্চল ও বহু নিম্নাঞ্চল ইতিমধ্যেই প্লাবিত হয়ে হয়েছে। বিশেষ করে বুধবার (১৫ জুলাই) সকালের মধ্যেই জামালপুর জেলার ইসলামপুর ও দেওয়ানগঞ্জ উপজেলাধীন যমুনার চরাঞ্চল সমূহের অসংখ্য নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে।

ইসলামপুরের বন্যার পরিস্থিতি এলাকাগুলো সাপধরীর প্রজাপতি, চরশিশুয়া, চরনন্দনের পাড়া, আমতলি, কাশারীডোবা, কটাপুর, ইন্দুল্যামারী, আকন্দ পাড়া, কোদাল ধোয়া, মন্ডল পাড়া, বিশরশির ও দেওয়ানগঞ্জে খুলাবাড়ী, মন্ডলবাজার, উপজেলা নির্বাহী এলাকা,স্টেশন, গুজিমারি,ডাকরা পাড়া, মোল্লাপাড়া বেলতলী বাজার,সানন্দবাড়ী, পাররামরামপুর ইউনিয়ন, হাতিভাঙ্গা ইউনিয়ন, বাহাদুরাবাদ ইউনিয়ন, দেওয়ানগঞ্জ পৌরসভা সুগার মিল সহ চরাঞ্চল সমুহের অসংখ্য নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়ে বহু কৃষকের পাট ও আউশ ধান ক্ষেত পানির নিচে তলিয়ে যাচ্ছে। এসব চরাঞ্চলের অন্ততঃ ২০ হাজার বাড়ীঘরে বন্যার পানি প্রবেশ হয়েছে। ইতিমধ্যেই বন্যা কবলিত এলাকায় বিশুদ্ধ পানি ও গো-খাদ্যের সংকট শুরু হয়েছে।

এবছরের বন্যায় যমুনার বুকে জেগে উঠা দেওযানগঞ্জের খোলাবাড়ী এবং ইসলামপুরের শ্বশারিয়াবাড়ী।

0Shares

Comment here