জাতীয়

লাকসামে সালিশি বৈঠকে ইউপি ও পুলিশ সদস্যর ছুরিকাঘাতে অটোরিকশা চালকের মৃত্যু

পলাশ আহমেদ লাকসাম প্রতিনিধি : কুমিল্লার লাকসামে আজগরা ইউনিয়নের চরবাড়িয়া এলাকায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে স্থানীয় সালিশি বৈঠকে ইউপি ও পুলিশ সদস্যর বেধরক মারধরের পর ছুরিকাঘাতে এক অটোরিকশা চালককে হত্যা করা হয়েছে।

শুক্রবার (৩ জুলাই) উপজেলার আজগরা ইউনিয়নের চরবাড়িয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।
নিহত সানাউল্লাহ (৫৫) উপজেলার আজগরা ইউনিয়নের চরবাড়িয়া গ্রামের শফিউল্লাহর ছেলে।
স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, নিহত সানাউল্লাহ বাড়ির পাশের মসজিদে জুম্মার নামাজ পড়তে যান। এসময় মসজিদের ভিতরে হুজুরের খুতবারত অবস্থায় পিছনে বসে হাসাহাসি ও দুষ্টুমি না করার জন্য জামশেদের ছেলেকে নিষেধ করে সানাউল্লাহ। নামাজ শেষে এনিয়ে জামশেদ ও সানাউল্লাহর মধ্যে বাকবিতন্ড হয়। জামশেদ সানাউল্লাহর বিরুদ্ধে শুক্রবার সন্ধ্যায় সালিশি বৈঠক ডাকে স্থানীয় সিরাজুল ইসলামের দোকানে। এসময় বৈঠকে দুই পক্ষের বাক-বিতন্ডের মধ্যে উত্তেজিত হয়ে জামশেদ, স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য আবুল ও পুলিশ সদস্য সুমন সানাউল্লাহকে বেধরক মারধর করে। একপর্যায়ে সানাউল্লাহর শরীরের বিভিন্ন অংশে একাধিক ছুরিকাঘাত করে। পরে স্থানীয়রা মুমূর্ষ অবস্থায় সানাউল্লাহকে উদ্ধার করে লাকসাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত. ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে লাকসাম থানা পুলিশ একদল পুলিশ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে উপস্থিত হয়ে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে মময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন।
ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে লাকসাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নিজাম উদ্দিন জানান, সালিশি বৈঠকে দুই পক্ষের সংঘর্ষে অটোরিকশা চালককে ছুরিকাঘাতে হত্যার ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ লাকসাম স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে উপস্থিত হয়ে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ঘটনার সঙ্গে  জড়িতদের দ্রুত আইনের আওতায় আনা হবে বলে তিনি জানান।
0Shares

Comment here