অর্থনীতিখেলার মাঠেজাতীয়ধর্মকর্মপ্রযুক্তিরকমারিরাজনীতিরুপসী বাংলালাইফস্টাইলস্বাস্থ্যপাতা

ঢাকা-৫ আসনে উপনির্বাচনে হাজী আতিকুর রহমান জনপ্রিয়তার শীর্ষে

দিগন্তর রিপোর্ট | ঢাকা-৫ (ডেমরা-যাত্রাবাড়ি ও আংশিক কদমতলী) আসন থেকে মোহাম্মদ আতিকুর রহমান আতিক নৌকা প্রতিক নিয়ে খুব শিঘ্রই মাঠে নামতে যাচ্ছেন বলে একটি বিশ্বস্ত সূত্রে জানা যায়। তার প্রতি দলীয় হাই কমান্ডের সবুজ সংকেত রয়েছে বলে জানিয়েছে সূত্রটি।

এ আসনের সংসদ সদস্য হাবিবুর রহমান মোল্লার মৃত্যুতে আসনটি শূন্য ঘোষণা করেছে সংসদ সচিবালয়। তার মৃত্যুতে উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে এই আসনে। ঢাকা-৫ আসনের উপনির্বাচনে হাজী আতিকুর রহমান আতিকই জনপ্রিয়তার শীর্ষে রয়েছে বলে জানিয়েছে সূত্রটি।

তবে নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা না হলেও ঢাকা-০৫ (সংসদীয়-১৭৮) আসনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পেতে দোঁড়ঝাপ শুরু করছেন প্রায় ডজন খানেক নেতা। ঢাকা-০৫ এর অন্তরভূক্ত ইউনিয়ন গুলো হলো মাতুয়াইল, ডেমরা, সারুলিয়া ও দনিয়া। মোট ১৪ টি ওয়ার্ড( ৬০ নং থেকে ৭০ নং এবং ৪৮,৪৯ ও ৫০ নং ওয়ার্ড) নিয়ে এ আসনে ভোটার সংখ্যা প্রায় ৪ লক্ষাধিক।

শতকরা ৮০℅ ভোট পেয়ে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৭০ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর নির্বাচিত হওয়া ব্যাপক জনপ্রিয় এ নেতা ইতোমধ্যে তার নির্বচনী এলাকায় ব্যাপক জনকল্যাণ মূলক কার্যক্রম হাতে নিয়েছেন।

স্কুল, কলেজ, মসজিদ, মাদ্রাসা, মন্দির, এতিমখানা ওয়েলফেয়ার সহ ভিবিন্ন সমাজিক সংগঠনের তিনি প্রতিষ্ঠাতা ও পৃষ্ঠপোশক। প্রায় অর্ধশত প্রতিষ্ঠান রয়েছে যার খরচের সিংহ ভাগ অর্থ তিনি নিজে যোগান দেন। এ প্রতিবেদকের সাথে একান্ত আলাপ কালে তিনি বলেন আমি বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের একজন সামান্য কর্মী। ১৯৮০ সাল থেকে ছাত্রলীগের রাজনীতির মধ্যে দিয়ে রাজনীতিতে আসা হাজী আতিক প্রায় ৩ যুগেরও অধিক সময় ধরে দলের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন।

তিনি বলেন ১৯৮১ সালে নেত্রী যখন বাংলাদেশে ফিরে আসেন তখন এয়ারপোর্টে তাকে বরন করতে যে কয়জন নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন তাদের মধ্যে আমিও ছিলাম, ব্যাক্তিগত ভাবে তিনি আমাকে চিনেন। দলের দু:সময়ে পাশে থেকে কাজ করেছি, অর্থ দিয়ে,পরিশ্রম দিয়ে, সময় দিয়ে চেষ্টা করেছি দলের উত্তরনের। ভবিষ্যতেও যদি উপর থেকে এমন কোন নির্দেশনা আসে তাহলে অবশ্যই দলের জন্য আমি তা করতে প্রস্তুত রয়েছি।

এক প্রশ্নের উত্তরে হাজী আতিক বলেন, একজন এমপি হয়ে এলাকার উন্নয়নে মানুষের জন্য যতটানা করা সম্ভব একজন ওয়ার্ড কাউন্সিলর হয়ে তা করা সম্ভব নয়, তাই সংসদীয় এলাকার উন্নয়ন ও জনতার সার্থেই প্রার্থী হয়েছি। দল যদি আমাকে যোগ্য মনে না করে অন্য কাউকে মনোনয়ন দেন তাতেও আমার কোন আক্ষেপ থাকবেনা। আমি দলের নির্দশনা মেনে নিয়েই কাজ করে যাবো। দেশ ও জনগনের সেবা করতে আমার নেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা যদি আমাকে নমিনেশন দেন তাহলে আমি ঢাকা -৫ (ডেমরা-যাত্রাবাড়ি আংশিক কদমতলী ) আসনে নৌকার বিজয় অক্ষুন্ন রাখবো ইংশাল্লাহ।।

0Shares

Comment here