জাতীয়ধর্মকর্ম

তালতলীতে এক ভিক্ষুকের জায়গা জালিয়াতি করে, ভিটে মাটি ছাড়ার অপচেস্টা

এস এম আবুল হাসান, নিজস্ব প্রতিনিধি: বরগুনার তালতলী উপজেলার ৩নং কড়ইবাড়িয়া ইউনিয়নের আলির বন্দর গ্রামের প্রতিবন্ধী আঃহক হাওলাদারের পৈত্রিক সম্পত্তি  অত্যন্ত সুকৌশলে কেড়ে নিলেন জয়নাল শেখের প্রতারক ছেলে মজিবর শেখ।

সরেজমিন গিয়ে জানাযায়,মৃত মফেজ আলীর ছেলে প্রতিবন্দী আঃ হক হাং ৩ বছর বয়সে তার পিতাকে হারান। সে জন্ম থেকেই মানষিক প্রতিবন্ধী মানুষের ধারে ধারে ঘুরে ভিক্ষা করে সংসার চালান । লেখা পড়া না জানায় দীর্ঘদিন ধরে অতি কলা কৌশলে মজিবর শেখ একের পর এক তাকে ঠকিয়ে চলছেন বলে জানযায়।

ঘটনার বিবরনে জানাযায় আঃ হকের মোট ০১ একর ৪০ শতাংশ পৈত্রিক সম্পত্তি রয়েছে। সুযোগের অপব্যাবহার করে, এগ্রিমেন্টের কথা বলে ৬০হাজার টাকা দিয়ে ১ একর ৪০ একর জমি জালিয়াতি করে নিজ নামে দলিল করে নেন মজিবর শেখ, যার মুল্য প্রায় ৭লাখ টাকার উর্ধ্বে।

এ বিষয়ে কড়ইবাড়িয়া ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ সভাপতি বাবু কৃষ্ণ কান্ত মজুমদার জানান দীর্ঘদিন যাবত এই ধোঁকাবাজ জমিটা দখল করার জন্য অনেক চেষ্টা চালিয়ে জাচ্ছিল। সুযোগ বুঝে প্রতারক আঃহকের স্ত্রী ছেলে সহ নিজ পিতাকেও ১টি মিথ্যা মামলা দিয়ে তাদেরকে বাড়ি ছাড়ার পায়তারা করেন। পরে প্রতারক মজিবর সকলের কাছে বলে বেড়ান এি জমি সে কিনেছেন এবং নিজ নামে সাব কবলা করেছে। পরে মামলার অভ্যহতি পেয়ে আঃ হক নিজ বাড়িতে আসলে তাকে বাড়ি থেকে বের করে দেন মজিবর। পরক্ষণে স্থানীয় লোকজন এসে আঃ হককে তার নিজ ঘরে উঠিয়ে দিয়ে যান।

এ বিষয়ে আব্দুল হক জানান,জন্মের পড়ে আমার পিতা মারাযাওয়ার কারণে এবং আমি প্রতিবন্ধী হওয়ায় পড়াশোনা করতে পারিনি। আমি লেখাপাড়া জানিনা বিধায়  মজিবর শেখ এগ্রিমেন্টের কাথা বলে প্রতারণা করে আমার সকল জমাজমি নিয়ে নেয়। মজিবর শেখের সাথে আমার কথা ছিলো তিনি আমার জায়গা এগ্রিমেন্ট হিসেবে নিচ্ছেন। কিন্তু আমরা বাড়ী আসার পর জানতে পারি আমি নাকী জমি মজিবরের কাছে বিক্রি করে দিয়েছি। আমি প্রতিবন্ধি মানুষ এখন আমার কি করার আছে? কোথায় যাব আমি? আমি এর তীব্র নিন্দা জানাই।

স্হানীয় ইউ পি সদস্য জলিল রাঢ়ী বলেন “আঃ হক সহ তার পরিবারের সবার আইডি কার্ড প্রতারক নিয়ে যাওয়ায় আমরা তাকে কোন সাহায্য সহযোগিতা করতে পারছিনা। এলাকাবাসীর সকলের দাবি অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করে ভিক্ষুকের জমি তাকে ফিরিয়ে দেয়ার ব্যবস্থা করাহোক।

এবিষয়ে তালতলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আসাদুজ্জামান জানান,আঃহক হাওলাদার আমার কাছে অভিযোগ জানিয়েছে এবং আমি নোটিশ করেছি।

0Shares

Comment here