খেলার মাঠেজাতীয়ধর্মকর্ম

চিরিরবন্দরে স্বামী কর্তৃক স্কুল শিক্ষিকা স্ত্রীকে অমানুষিক নির্যাতন, থানায় অভিযোগ দায়ের

মোঃ মিজানুর রহমান,
দিনাজপুর জেলা প্রতিনিধিঃ দিনাজপুর জেলাধীন চিরিরবন্দরে স্বামী কর্তৃক প্রাইমারী স্কুল শিক্ষিকাকে দফায় দফায় অমানুষিক শারীরিক নির্যাতন ও রক্তাক্ত করা হয়েছে।
গত সোমবার (১৩ই এপ্রিল) রাত ১০:৩০ টার সময় চিরিরবন্দর উপজেলার ৩নং ফতেজংপুর ইউনিয়নের বড় হাশিমপুর গ্রামে এ ঘটনাটি ঘটেছে।
পারিবারিক ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার বড় হাশিমপুর গ্রামে মোঃ ইয়াকুব আলীর (৪৮) বাড়ি। তার স্ত্রীর নাম মোছাঃ মন্জুয়ারা বেগম (৪৫) । তারা স্বামী-স্ত্রী উভয়েই পৃথক পৃথক সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ‘প্রধান শিক্ষক’ পদে চাকুরী করেন।
গত সোমবার (১৩ই এপ্রিল) সকালে বেতনের টাকাকে কেন্দ্র করে ইয়াকুব আলী, তার স্ত্রী মন্জুয়ারা বেগমকে প্রচন্ড মারধরসহ শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করেন। নির্যাতন ও মারধরের চোটে এক পর্যায়ে মন্জুয়ারা বেগম পার্শ্ববর্তী প্রতিবেশীর বাড়িতে আশ্রয় নিতে বাধ্য হন। পরে সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের সহায়তায় বিষয়টি মীমাংসা হয় এবং সন্ধায় মন্জুয়ারা বেগমকে বাড়িতে পৌঁছে দেয়া হয়।
পরবর্তীতে রাত ১০:৩০ টার সময় পুনরায় ইয়াকুব আলী তার স্ত্রীকে লাঠি দিয়ে অমানুষিক শারীরিক নির্যাতনসহ শরীরের বিভিন্ন জায়গায় রক্তাক্ত করেন। নির্যাতনের মাত্রা এতটাই ভয়াবহ ছিল যে, মন্জুয়ারা বেগম মানসিক ভারসাম্যহীন হয়ে পড়ার উপক্রম হয়েছিলেন। অবস্থার অবনতি হলে এলাকার লোকজন সুচিকিৎসার জন্য তাকে চিরিরবন্দর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন।
মন্জুয়ারা বেগম এর সাথে কথা হলে তিনি কান্নাজড়িত কন্ঠে বলেন, আমার স্বামী এভাবে দীর্ঘদিন ধরে আমার উপর অমানুষিক ভাবে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন চালিয়ে আসছেন। এর আগেও তিনি আমাকে মারধর করে আমার একটি পা ভেঙ্গে দিয়েছেন। উনি মারধর করে যে কোন সময় আমাকে মেরেও ফেলতে পারে এই নিয়ে আমি চরম আতঙ্কের মধ্যে দিনাতিপাত করছি। আমি ইতিমধ্যে ১৪ ই এপ্রিল চিরিরবন্দর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছি।
চিরিরবন্দর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সুব্রত কুমার সরকার দৈনিক দিগন্তর’কে জানান, আমি একটি অভিযোগ পত্র হাতে পেয়েছি। আজকে মীমাংসার জন্য বসার কথা আছে। মীমাংসা না হলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
0Shares

Comment here