খেলার মাঠেজাতীয়ধর্মকর্ম

জলবায়ুর অস্বাভাবিক পরিবর্তনের অন্যতম প্রধান কারণ বৃক্ষ নিধন। নির্বাহী পরিচালক, পরিবেশ ফাউন্ডেশন।

 

আসছে গ্রীষ্মকাল। গ্রীষ্মে সূর্যের প্রখর তাবদাহে প্রকৃতি এক ভয়াল মূর্তি ধারণ করে। তাপমাত্রা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে জলবায়ুর ব্যাপক পরিবর্তন ঘটতে থাকে। ফলে প্রকৃতিও বিরূপ আচরণ করে; যার পরিণাম হয় বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগ।

তখন তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস থাকে প্রায় প্রতিদিনই। জলবায়ুর অস্বাভাবিক পরিবর্তনের অন্যতম প্রধান কারণ বৃক্ষ নিধন। একটি দেশের মোট আয়তনের শতকরা ২৫ ভাগ বনভূমি থাকার কথা থাকলেও আমাদের দেশে আছে মাত্র ১৬ ভাগ। যেটুকু আছে তাও ধীরে ধীরে উজাড় হয়ে যাচ্ছে বিভিন্ন কলকারখানা, প্রতিষ্ঠান আর বসতবাড়ি স্থাপনের জন্য।বনভূমি উজাড়ের ফলে বায়ুমণ্ডলে কার্বন-ডাই-অক্সাইডের পরিমাণ বাড়ছে আর কমছে অক্সিজেনের পরিমাণ। অতিরিক্ত তাপমাত্রা বৃদ্ধির ফলে গলে যাচ্ছে মেরু অঞ্চলের বরফ এবং বাড়ছে সমুদ্রের উচ্চতা। ধেয়ে আসছে জলোচ্ছ্বাস, তলিয়ে যাচ্ছে নিম্নাঞ্চল। নষ্ট হচ্ছে প্রাকৃতিক ভারসাম্য।

বিশেষ করে কৃষিক্ষেত্রে এর প্রভাব মারাত্মকভাবে পড়ে। অতিবৃষ্টি, অনাবৃষ্টি, খরা, ঝড়, বন্যাসহ বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগ এখন আমাদের নিত্যসঙ্গী। সম্প্রতি ঘূর্ণিঝড় ফণীর ছোবল থেকে আমাদের অনেকাংশে রক্ষা করেছে সুন্দরবন। এ থেকে সহজেই বোঝা যাচ্ছে, বনভূমির গুরুত্ব কতটা!

আমাদের দেশের জনসংখ্যা প্রায় ১৭ কোটি। প্রতিবছর সবাই যদি একটি করে গাছের চারা রোপণ করেন, তবে প্রকৃতি কী অপরূপ হয়ে উঠবে; তা ভাবলেই মনে শিহরণ সৃষ্টি হয়। প্রকৃতির করালগ্রাস থেকে রক্ষা পেতে হলে বৃক্ষরোপণসহ নানা পদক্ষেপ গ্রহণের ব্যাপারে আমাদের এখনই সজাগ হতে হবে।।

শাহবাজ জামান (নির্বাহী পরিচালক)                                    পরিবেশ ফাউন্ডেশন

0Shares

Comment here