অর্থনীতিজাতীয়ধর্মকর্ম

হোমনায় মুক্তিযোদ্ধা ও তার ভাইদের সম্পত্তি দখলের পায়তারা।

 

বাঞ্ছারামপুর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধিঃ কুমিল্লার হোমনায় জোরপূর্বক এক মৃত মুক্তিযোদ্ধার ক্রয়কৃত ও পৈত্রিক সম্পত্তি দখলের পায়তারা সহ প্রান নাশের হুমকি দিচ্ছে প্রতিপক্ষ। শুধু তাই নয় তারা অবৈধ পন্থায় কাগজপত্র তৈরী করে ওই মুক্তিযোদ্ধা এবং তার ভাইদের জমি দখলের পায়তারা চালাচ্ছে বলেও অভিযোগ উঠেছে।

প্রাণ ভয়ে এলাকায় আসতে পাড়ছে না ওই মুক্তিযোদ্ধার পরিবার। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার চান্দেরচর ইউনিয়নের পশ্চিম শোভারামপুর গ্রামে।

মরহুম মুক্তিযোদ্ধা গোলাম কিবরিয়া’র ভাই প্রফেসর শামস তাবরিজ এর অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উত্তর চান্দেরচর মৌজার-৭৯৭নং খতিয়ানের সাবেক ৮৩ হালে,১৭১ নং দাগের মোট ২০ শতাংশ ভূমির অন্দরে পশ্চিমাংশে ০৬ শতাংশ ভূমি মাত্র। উল্লেখিত তফসিল বর্ণিত জায়গা নিয়ে উক্ত সম্পত্তির জবর দখলকারি আবু মুছা গংদের বিরুদ্ধে কুমিল্লা ট্রাইব্যুনাল আদালতে মামলা রয়েছে যাহার মামলা নং-১৭০৭/১৯, ১৪৫ ধারায় মামলা বিচারাধিন থাকা অবস্থায় বিবাদীগন জোরপূর্বক আইনি নিষেধাজ্ঞা-১৪৫ ধারা অমান্য করে আবু মুছা (৮০) ও তার পুত্র আব্দুল কাইউম চোকিদার জায়গা দখল নিয়ে ঘর নির্মাণ করিতেছে।

এব্যাপারে প্রফেসর শামস তারবিজ বলেন,তাদের ভয়ে আমরা কেউ বাড়িতে আসতে পারি না। সকলের সামনে কাজ করলেও বলার কেউ নেই। কাইউম একজন আইনের লোক হয়ে কিভাবে আইনকে বৃদ্ধা আঙ্গুলি প্রদর্শন করে উক্ত জায়গায় ঘর নির্মাণ করিতেছে সেটা অত্যান্ত দুঃখজনক ও ভাববার বিষয়।

জানাযায় আদালত থেকে ১৪৫ ধারা জারি হলেও নির্মাণ কাজ থেমে থাকেনি। প্রতিদিন সকাল থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত কয়েকজন মিস্ত্রী কাজ করে যাচ্ছেন সর্বধা। এদিকে গত ১৮ ডিসেম্বর আদালত থেকে ১৪৫ ধারা জারীর নির্দেশনামা হোমনা থানায় এলে থানার অফিসার ইনচার্জ কতৃক বাদী ও বিবাদীকে শান্তি বজায় রাখার জন্য একটি নোটিশ প্রদান করা হলেও তা মানছে না দখলকারী আবু মুছার পরিবার। জমি দখলকারী আবু মুছার ছেলে কাইউম ও তার পরিবারের সদস্যরা এবিষয়ে বলেন, এই জমির সমস্ত কাগজপত্র আমাদের নামে,আমরা সব কিছু মেনেজ করেই জমিতে কাজ শুরু করেছি।

আমরা সব জায়গা থেকে অনুমতি নিয়েই কাজ করতেছি। ১৪৫ ধারা ভঙ্গ করে নির্মাণ কাজ অবৈধ কিনা এই বিষয়ে সে কোন সদুত্তর দিতে পারেনি।

এ বিষয়ে হোমনা থানার উপ-পরিদর্শক (এস.আই) অহেদ মুরাদ বলেন, আমি আদালতের নির্দেশ মোতাবেক ঘটনা স্থলে গিয়ে বাদী ও বিবাদীকে শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য নোটিশ প্রদান করে এসেছি। জায়গাটির প্রকৃত মালিককে কাগজপত্র দেখে আদালত তা রায় দেবে। আদালত হতে সরেজমিনে পরিদর্শন করে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করার জন্য বলেছে। আমি তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছি।
এব্যাপারে হোমনা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ফজলে রাব্বী বলেন,আদালত ওই জমির স্থিতিরস্থা রাখার বিষয়ে কোন নির্দেশনা দেন নাই। তবে শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখতে ও সরেজমিনে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করার জন্য বলেছে। আদালতে অতিদ্রুত তদন্ত প্রতিবেদন পাঠানো হবে।

0Shares

Comment here