অর্থনীতিজাতীয়প্রযুক্তি

আওয়ামী লীগে মেয়র প্রার্থী উত্তরে ১২ দক্ষিণে ৮, সিদ্ধান্ত শনিবার

ডেস্ক রিপোর্টঃ ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র পদে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন ২০ সম্ভাব্য প্রার্থী। এর মধ্যে উত্তরে ১২ এবং দক্ষিণে ১০ জন রয়েছেন।

এছাড়া দুই সিটির ১২৯ ওয়ার্ডে ১২৯৩ জন সাধারণ কাউন্সিলর পদে আওয়ামী লীগের সমর্থন পেতে আবেদন ফরম জমা দিয়েছেন। শনিবার সন্ধ্যায় গণভবনে দলের স্থানীয় সরকার নির্বাচন মনোনয়ন বোর্ডের সভায় মেয়র ও কাউন্সিল পদে প্রার্থী চূড়ান্ত করা হবে।

বুধবার সকাল থেকে মেয়র পদে ফরম বিক্রি ও জমা দেয়ার কার্যক্রম শুরু হয়। চলে শুক্রবার বিকাল ৫টা পর্যন্ত। ৩ দিনে মেয়র পদে ঢাকা দক্ষিণ সিটিতে নৌকা পেতে যারা মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন তারা হলেন- দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের বর্তমান মেয়র সাঈদ খোকন, ঢাকা-১০ আসনের সংসদ সদস্য শেখ ফজলে নূর তাপস, আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট নজিবুল্লাহ হিরু, ঢাকা-৭ আসনের সংসদ সদস্য হাজী মোহাম্মদ সেলিম, আওয়ামী লীগ নেতা মো. নাজমুল হক, মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক মহাসচিব অধ্যাপক এমএ রশিদ, আশরাফ হোসেন সিদ্দিকী ও হাজী আবুল হাসনাত।

অন্যদিকে উত্তর সিটিতে নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশীরা হলেন- বর্তমান মেয়র আতিকুল ইসলাম, বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের শহীদুল্লাহ ওসমানী, সামজিক সংগঠন ‘একটি পরিকল্পিত নগরী’র চেয়ারম্যান কুতুবউদ্দিন নান্নু, ভাসানটেক থানা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মেজর (অব.) মোহাম্মদ ইয়াদ আলী ফকির, শহীদ পরিবারের সন্তান অধ্যাপক মোহাম্মদ জামান ভূঁইয়া, ব্যবসায়ী হেলেনা জাহাঙ্গীর, আলাউদ্দীন মোহাম্মদ, জেরিন সুলতানা কান্তা, ব্যবসায়ী আদম তমিজি হক, খায়রুল মজিদ, মিসেস রেহেনা ফরহাদ আইভি ও মোহাম্মদ ইদ্রিস আলী মোল্লা।

এদিকে মেয়র পদে মনোনয়ন ফরম বিক্রির কার্যক্রম শুরুর পরদিন বৃহস্পতিবার সকালে কাউন্সিলে পদে দলীয় আবেদন ফরম বিক্রি শুরু করে আওয়ামী লীগ। শুক্রবার বিকাল ৫টা পর্যন্ত ২ দিনে দুই সিটিতে ১২৯ ওয়ার্ডে ১২৯৩ জন আওয়ামী লীগের ফরম কিনেছেন। গড়ে প্রতিটি ওয়ার্ডে প্রার্থী সংখ্যা দাঁড়িয়েছে প্রায় ১০ জনে। এর মধ্যে উত্তরে ৬২৬ এবং দক্ষিণে ৬৬৭ জন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ফরম কিনেছেন। উত্তরের ৫৪ ওয়ার্ডে গড়ে প্রায় ১১ প্রার্থী এবং দক্ষিণে ৭৫ গড়ে প্রায় ৯ জন করে প্রার্থী আওয়ামী লীগের সমর্থন পেতে দলীয় আবেদন ফরম সংগ্রহ করেছেন।

এদিকে তৃতীয় ও শেষ দিনে ধানমণ্ডির আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে নিজে উপস্থিত হয়ে মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন বর্তমান মেয়র সাঈদ খোকন। এ সময় তিনি বলেন, নগরবাসীর কাছে, দেশবাসীর কাছে আমার জন্য দোয়া চাই। ইনশাআল্লাহ আমি আশাবাদী দল ও আমার প্রিয় নেত্রী আমাকে মনোনয়ন দেবেন।

একই দিন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ফরম জমা দেন ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস ও হাজী মোহাম্মদ সেলিম। হাজী সেলিম নিজে এসে ফরম জমা দিলেও তাপস নিজে আসেননি। তাপসের পক্ষে ধানমণ্ডি, মোহাম্মদপুর, হাজারীবাগ ও নিউমার্কেট থানার নেতারা উপস্থিত ছিলেন। এ সময় দুই প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে পাল্টাপাল্টি স্লোগানও দিতে দেখা যায়।

স্বাস্থ্যগত কারণে হাজী মোহাম্মদ সেলিম কথা বলতে না পারায় মিডিয়ার সামনে তিনি কোনো মন্তব্য করেননি। তবে তার পক্ষে কথা বলেন দেলোয়ার হোসেন। তিনি বলেন, দলীয় মনোনয়ন পাবেন ও বিজয়ী হবেন- এমনটি মনে করছেন হাজী সেলিম। ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস না আসায় তার মনোনয়ন ফরম জমা দিয়ে কথা বলেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মোর্শেদ কামাল।

তিনি বলেন, ঢাকা ১০ আসনের সংসদ সদস্য শেখ ফজলে নূর তাপস তার নির্বাচনী এলাকার উন্নয়নের সূতিকাগার। এ কারণে নগরবাসীও চাচ্ছেন শেখ ফজলে নূর তাপস মেয়র নির্বাচিত হোক। গণমাধ্যমের সামনে কথা বলার সময় হাজী মোহাম্মদ সেলিম ও তাপসের সমর্থকদের মধ্যে পাল্টাপাল্টি স্লোগান দিতে দেখা যায়।

এছাড়া শুক্রবার সকালে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র পদে মনোনয়ন ফরম কিনে বিকালে তা জমা দিয়েছেন আওয়ামী লীগের আইনবিষয়ক সম্পাদক নজিবুল্লাহহিরু। তার সহকারী অ্যাডভোকেট ওমর ফারুক তার পক্ষে মনোনয়ন ফরম ক্রয় ও জমা দেন। এছাড়া মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে এদিন মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক মহাসচিব অধ্যাপক এমএ রশিদ। এ সময় তার সঙ্গে বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব সফিকুল বাহার মজুমদার টিপু উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে ঢাকা উত্তরের মেয়র পদে মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম। ওই সময় সাংবাদিকদের বলেন, ৯ মাস দায়িত্ব পালনকালে কিছু কর্মসূচি ঘোষণা করেছি। উত্তর সিটির উন্নয়নে বেশকিছু কাজ হাতে নিয়েছি, এর মধ্যে অনেকগুলোই অসমাপ্ত। এসব অসমাপ্ত কাজ সম্পন্ন করতে চাই। আশা করি এবারও আমি মনোনয়ন পাব।

0Shares

Comment here