অর্থনীতিজাতীয়প্রযুক্তি

আজ শুভ বড় দিন।

ডেস্ক রিপোর্টঃ আজ ২৫ ডিসেম্বর, শুভ বড় দিন। ‘পাপীকে নয়, ঘৃণা করো পাপকে। আর ‘ঘৃণা নয়, ভালোবাসো’ ‘সদা দীপ্ত রহে অক্ষয় জ্যোতির্ময়’- এই আহবান নিয়ে যিশুখ্রিস্ট এদিন আসেন এ পৃথিবীতে। বর্ণিল আলোক সজ্জার রোশনাইয়ে অনাবিল আনন্দধারার মধ্য দিয়ে খ্রিস্টান স¤প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব বড় দিন।

বিশ্বব্যাপী ক্রিস্টান সম্প্রদায় এ দিনটি উদযাপন করছে বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনায়। গির্জা, গৃহ-দুয়ার সাজানো হয়েছে গো-সালা, ক্রিসমাস ট্রি আর বর্ণময় বাতি দিয়ে। পুনর্জন্ম, নতুন শুরু, ক্ষমা ও শান্তি এবং ঈশ্বর ও মানুষের সম্পর্কের নবজীবন দানের উৎসবই হলো বড়দিন। রঙিন বাতিতে ক্রিসমাস ট্রি সাজানো, বিশেষ প্রার্থনা, শিশুদের মাঝে উপহার বিতরণ এবং স্বজনদের সাথে সাক্ষাৎ এ উৎসবের মূল অনুষঙ্গ। গির্জায় প্রার্থনা শুরু ও শেষের পর গাওয়া হয় বড়দিনের বিশেষ গান ও বন্দনা সঙ্গীত।
বড়দিন উপলক্ষে প্রেসিডেন্ট মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন। প্রেসিডেন্ট তার বাণীতে বলেন, বাংলাদেশ হচ্ছে সা¤প্রদায়িক স¤প্রীতির দেশ। তিনি একটি সুখী, সমৃদ্ধ ও অসা¤প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ে তুলতে সবাইকে একসাথে কাজ করার আহŸান জানান।
প্রধানমন্ত্রী তার বাণীতে বলেন, বাংলাদেশ সা¤প্রদায়িক স¤প্রীতির দেশ, যেখানে সব ধর্মের মানুষ নিজ নিজ ধর্মীয় বিধান পালনের পূর্ণ স্বাধীনতা ভোগ করেছেন। তিনি আশা প্রকাশ করেন, বড়দিন খ্রিস্টান ও অন্যান্য স¤প্রদায়ের মধ্যে সম্পর্কের বন্ধন আরও দৃঢ় করবে।
এ ছাড়া বড়দিন উপলক্ষে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর তার বাণীতে খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বী সবাইকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন।
বড়দিন উপলক্ষে প্রেসিডেন্ট আবদুল হামিদ বঙ্গভবনে খ্রিস্টান স¤প্রদায়ের সদস্যদের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের আর্চবিশপ, বিভিন্ন দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত ও প্রতিনিধি, খ্রিস্টান স¤প্রদায়ের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি, ধর্মীয় নেতা ও পেশাজীবীরা অংশ নেবেন। অনুষ্ঠানে একদল শিল্পী বড়দিনের গান পরিবেশন করবেন। পরে প্রেসিডেন্ট খ্রিস্টান স¤প্রদায়ের সদস্যদের সাথে নিয়ে বড়দিনের কেক কাটবেন।
বাংলাদেশ টেলিভিশন, বাংলাদেশ বেতার এবং অন্যান্য বেসরকারি টিভি চ্যানেল ও রেডিও স্টেশন দিবসটির গুরুত্ব তুলে ধরে বিশেষ অনুষ্ঠানমালা প্রচার করবে।

0Shares

Comment here