অর্থনীতিজাতীয়প্রযুক্তি

হাজার হাজার দলীয় সমর্থকদের বললেন আমাকে ফাঁসানো হয়েছে মেয়র মিরু।

মাহফুজুর রহমান সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধিঃ শাহজাদপুর পৌরসভার মেয়র (বর্তমান সাময়িক বরখাস্তকৃত ) মুক্তিযোদ্ধা হালিমুল হক প্রায় ৩ বছর জেলে থাকার পর জামিনে মুক্তি পেয়ে ঢাকায় চিকিৎসাধীন শেষে আজ শুক্রবার তিনি শাহজাদপুরে এসেছেন।

হালিমুল হক মিরুর আগমণ উপলক্ষে বগুড়া নগরবাড়ী মহাসড়কের শাহজাদপুর উপজেলার বিসিক বাসস্ট্যান্ডে হাজার হাজার নেতাকর্মী ও সমর্থকরা উপস্থিত হন। হালিমুল হক মিরু ঢাকা থেকে বিসিক বাসস্ট্যান্ডে নামলে তাকে বিশাল মিছিল বহর যোগে শ্লোগান দিতে দিতে তার মনিরামপুরস্থ নিজ বাড়িতে নিয়ে আসে। পরে শাহজাদপুর হাইস্কুল মাঠে হাজার হাজার নেতাকর্মীদের মাঝে বক্তব্য প্রদানকালে হালিমুল হক মিরু কান্না জড়িত কণ্ঠে বলেন, আমি ষড়যন্ত্রের শিকার প্রায় ৩ বছর জেল খাটার পর আপনাদের দোয়ায় ফিরে এসেছি। আমি পর্যায়ক্রমে সকল ইউনিয়নে আপনাদের সাথে মতবিনিময় করবো আপনাদের ভালবাসায় আমি মুগ্ধ হয়েছি। এ সময় তাকে ফুলের মালা দিয়ে বরণ করেন তার সমর্থকরা। এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন থানা আওয়ামীলীগের সদস্য কে,এম, নাসির উদ্দিন, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা মোস্তাফিজুর রহমান পিযুস, দুলাল হোসেন, হযরত আলী প্রমুখ।
উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের ২ ফেব্রয়ারী শাহজাদপুর পৌরসদর মনিরামপুরে মেয়র হালিমুল হক মিরুর বাড়ির সামনে আওয়ামীলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষে সাংবাদিক শিমুল গুলিবিদ্ধ হন। এদিন চিকিৎসার জন্য প্রথমে শিমুলকে স্থানীয় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হলে হাসপাতাল থেকে সাংবাদিক শিমুলকে এদিন দ্রুত বগুড়া জিয়াউর রহমান মেডিকেল  কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয় । পর দিন উন্নত চিকিৎসার জন্য শিমুলকে বগুড়া থেকে ঢাকায় নেয়ার পথে সে মারা যায় । পরে শিমুলের স্ত্রী নুরন্নাহার খাতুন শাহজাদপুর থানায়  মেয়র মিরুকে প্রধান আসামী করে শাহজাদপুর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। থানার তদন্ত কর্মকর্তা মিরুসহ ৩৮ জনের  বিরুদ্ধে কোর্টে চার্জসিট দাখিল করে। দীর্ঘদিন কারা ভোগের পর মেয়র মিরু রাজশাহী জেল থেকে ২৭ নভেম্বর জামিনে মুক্তি পেয়ে চিকিৎসার জন্য ঢাকায় যান।
আজ শুক্রবার শাহজাদপুরে এসে তিনি জানান, আমার জনপ্রিয়তা দেখে আমাকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হয়েছে।
0Shares

Comment here