খেলার মাঠেজাতীয়লাইফস্টাইল

প্রায় ৩’শ কোটি টাকা লোকসানের বোঝা নিয়ে মোবারকগঞ্জ চিনিকলের উদ্ধোধন।

নজরুল ইসলাম (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধিঃ
প্রায় ৩’শ কোটি টাকা লোকসানের বোঝা নিয়ে দক্ষিনঞ্চালের একমাত্র ভারী শিল্প প্রতিষ্ঠান ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ মোবারকগঞ্জ চিনিকলের ২০১৯-২০২০ মাড়াই মৌসুমের শুভ উদ্ধোধন করা হয়েছে। শুক্রবার বিকালে মিলের ডোঙ্গায় আখ ফেলে মাড়াই মৌসুমের শুভ উদ্বোধন ঘোষনা করেন প্রধান অতিথি সাবেক প্রানীসম্পদ প্রতিমন্ত্রি ও ঝিনাইদহ-১ আসনের এম পি আব্দুল হাই।

 

বিশেষ অতিথি ছিলেন জাতীয় সংসদের ঝিনাইদহ সংরক্ষিত আসনের মহিলা এমপি খালেদা খানম, ঝিনাইদহ- ৪ আসনের সাবেক সাংসদ আব্দুল মান্নান, কালীগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর সিদ্দিকী ঠান্ডু ও কালীগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আশরাফুল আলম আশরাফ।

মোচিক মিলের ব্যাবস্থাপনা পরিচালক আনোয়ার কবিরের সভাপতিত্বে উদ্বোধন অনুষ্টানের আলোচনা সভাতে আরো বক্তব্য আখচাষী কল্যান সমিতির সভাপতি জহুরুল ইসলাম ও মোচিক শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি গোলাম রসুল প্রমুখ।

এ সভার মাধ্যমে মিলের বড় আখচাষী উপজেলার বালিয়াডাঙ্গা গ্রামের শাজাহান শেখের হাতে সন্মাননা স্বরুপ ক্রেষ্ট তুলে দেন প্রধান অতিথি আব্দুল হাই।

সভা শেষে প্রধান অতিথি ও অন্যান্য অতিথিবৃন্দ মিলের ডোঙ্গায় আখ ফেলে মাড়াই মৌসুমের শুভ উদ্বোধন ঘোষনা করেন।

 

উল্লেখ চলতি মাড়াই মৌসুসে চিনিকলটি প্রায় এক লাখ ৩০ হাজার মেট্রিক টন আখ মাড়াই করে সাত হাজার ৬৮৮ মেট্রিকটন চিনি আহরনের লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করেছে। আর চিনি আহরনের হার ধরা হয়েছে ৬.২৫%। মিলটির কার্যক্রম চলবে ৯০ দিন।

এ মৌসুমে মাঠে আখ রয়েছে প্রায় ৬ হাজার ২শ একর জমিতে। আখ চাষী রয়েছে প্রায় ৫ হাজার।
দক্ষিনাঞ্চলের অন্যতম ভারি এই শিল্প প্রতিষ্ঠানটি ২০১৮-১৯ আখ মাড়াই মৌসুমে প্রায় ৭৭ কোটি ৭০ লাখ টাকা লোকসান দিয়েছে। ওই বছর মিলটি চিনি উৎপাদন হয়েছিল ৫ হাজার ৭শ ৮৫ মেট্রিকটন।

বর্তমানে চিনিকলের গুদামে চিনি রয়েছে ২০৬ মেট্রিক টন। এছাড়াও এই মৌসুমে চিনি আহরনের লক্ষ্য ছিল ৭.৫০%। কিন্তু অর্জিত হয়েছে ৫.৬৮%। চিনিকলের শ্রমিকরা প্রায় দুই মাসের বেতন বাবদ ২ কোটি টাকা বকেয়া রয়েছে।

এছাড়া ২০১৭-২০১৮ ম্ড়াাই মৌসুমে ৩২ কোটি ৮৪ লাখ টাকা, ২০১৬-২০১৭ লোকসান হয় ২৬ কোটি ৯ লাখ টাকা লোকসান হয়। এ পর্যন্ত ৩৫ মাড়াই মৌসুমে লোকশান হয়েছে ৩’শ ১ কোটি টাকা। বাকি ১৬ মৌসুমে লাভ হয়েছে ৩৭ কোটি ৮৮ লাখ টাকা।

0Shares

Comment here